লোকসভায় রাফাল চুক্তিতে ভর করেই মোদী বিরোধিতায় নেমেছিলেন রাহুল গান্ধি। চৌকিদার চোর হ্যায় স্লোগান তুলেছিলেন সুপ্রিম কোর্টেকে হাতিয়ার করে । অথচ সেই সুপ্রিম কোর্টই জানিয়ে দিল, শীর্ষ আদালতকে কোট করে মোদীর বিরুদ্ধে মন্তব্য় করা ঠিক হয়নি। ইতিমধ্যেই যার জন্য সুপ্রিম কোর্টে ক্ষমা চেয়ে নিয়েছেন এই কংগ্রেস নেতা। এদিন শীর্ষ আদালতের তরফে বিজেপি নেত্রী মীনাক্ষী লেখির এক আবেদনের ভিত্তিতে  জানিয়ে দেওয়া হয়েছে, ভবিষ্যতে মন্তব্য করতে গিয়ে আরও সতর্ক হওয়া উচিত রাহুলের।

বৃহস্পতিবার সুপ্রিম কোর্টের এই মন্তব্য নিয়েই কংগ্রেস নেতা রাহুল গান্ধীকে একহাত নিয়েছে বিজেপি। বিজেপির সর্ব ভারতীয় মুখপাত্র রবি শংকর প্রসাদ বলেন, রাহুলের বক্তব্য লজ্জাজনক। তাঁর দায়িত্বজ্ঞনহীন মন্তব্য কোনও ভাবেই মেনে নেওয়া যায় না। এই মন্তব্যের মাধ্যমে দেশের নিরাপত্তার পাশাপাশি আন্তর্জাতিক কূটনীতিতেও ফ্রান্সের সঙ্গে ভারতের কী সম্পর্ক হবে তা ভাবেননি তিনি। কংগ্রেস বরাবরই জাতীয় নিরাপত্তার সঙ্গে সমঝোতা করে এসেছে। রাহুল গান্ধীও সেই পথেই হেঁটেছেন। এই ঘটনার জন্য দেশবাসীর কাছে ক্ষমা চাওয়া উচিত রাহুল গান্ধী ও কংগ্রেস পার্টির। 

একই কথা বলেছেন বিজেপি সাংসদ শাহনওয়াজ হুসেইন। রাফাল নিয়ে রায় বেরোনোর পর তিনি বলেন,শেষ পর্যন্ত সত্যেরই জয় হল। যারা প্রধানমন্ত্রীর দিকে আঙুল তুলেছিলেন তাঁরা মিথ্যেবাদী প্রমাণিত হলেন। এই ঘটনাই দেখিয়ে দিল কংগ্রেস পার্টির আসল রূপ। ফ্রান্সের সঙ্গে রাফাল যুদ্ধ বিমান চুক্তি ঘিরে স্বজনপোষণের অভিযোগ আনেন রাহুল গান্ধী। বলা হয়, প্রতিরক্ষা বিষয়ে জ্ঞান না থাকলেও অনিল আম্বানির সংস্থাকে রাফাল যুদ্ধবিমান রক্ষণাবেক্ষণের বরাত  পাইয়ে দেওয়া হয়েছে। ঘুরপথে এই কাজ করে মুনাফা কামিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী। সুপ্রিম কোর্টের রায়কে কোট করে মোদীর বিরুদ্ধে দুর্নীতির অভিযোগ করেন রাহুল । লোকসভা ভোটের আগে তাঁর চৌকিদার চোর হ্যায় স্লোগানকে তুলে ধরতে সুপ্রিম কোর্টকেই হাতিয়ার করেন কংগ্রেস নেতা। পরে যার বিরুদ্ধে সুপ্রিম কোর্টে মামলা করেন বিজেপি নেত্রী মীনাক্ষি লেখি। তিনি বলেন, সু্প্রিম কোর্টের রায়কে মিসকোট করেছেন রাহুল। এদিন সেই মামলার রায় দেয় সুপ্রিম কোর্ট।