ডিজিট্যাল ভারতের স্বপ্ন দেখেন প্রধানমন্ত্রী। সেই  স্বপ্ন কিছুটা হলেও যে সত্যি হয়েছে, তা বার বার দাবি করেছে কেন্দ্রীয় সরকার। এখন গ্রাম থেকে শহর, মানুষের হাতে স্মার্ট ফোন। জিনিস কেনা-বেচা থেকে শুরু করে, প্রয়োজনীয় সব কাজ ইন্টারনেটের মাধ্যমে চলে। সম্প্রতি প্রকাশিত একটি রিপোর্টে মোদীর ডিজিট্যাল ইন্ডিয়ার স্বপ্ন কিছুটা ধাক্কা খেল। ব্রডব্যান্ড স্পিড অ্যানালিসিস সংস্থা উকারা জানিয়েছে,  মোবাইলে ইন্টারনেটের স্পিডের থেকে ভারত পাকিস্তানের থেকে পিছিয়ে রয়েছে। পিছিয়ে রয়েছে  প্রতিবেশী দেশ নেপালের থেকেও। 

চলতি বছরের  সেপ্টেম্বরের ৭২টা জায়গায়  মোবাইলের ব্রডব্যান্ডের স্পিড পরীক্ষা করে।  উকারা তাদের রিপোর্টে জানিয়েছে,  বিশ্বে ডাউনলোড করার গড় স্পিড সেকেন্ডে ২৯.৫ মেগাবাইট এবং আপলোডের গড় স্পিড ১১.৩৪ এমবিপিএস।  মোবাইলে ইন্টারনেট পরিষেবার দিক  এগিয়ে রয়েছে দক্ষিণ কোরিয়া। দক্ষিণ কোরিয়ায় ডাউনলোডের গড় স্পিড ৯৫.১১ এমবিপিএস এবং আপলোডের স্পিড ১৭. ৫৫ এমবিপিএস। সেই জায়গায় ভারতের ডাউনলোড স্পিড ১১. ১৭ এমবিপিএস এবং আপলোডের স্পিড ৪.৩৮ এমবিপিএস। 

উকারা নামক সংস্থাটি তাদের রিপোর্টে জানিয়েছে, ভারতের  বড় বড় ১১টা শহরে মোবাইল ইন্টারনেটের সব থেকে ভালো পরিষেবা দেয়  এয়ারটেল।  তবে জিও  এয়ারটেলের থেকে কোনও অংশে কম যায় না। এয়ারটেলের মোবাইল ইন্টারনেটে সব থেকে ভালো পরিষেবা পাওয়া যায় নাগপুরে। ভারতের দুটো শহকে ভোডাফোনের সব থেকে ভালো পরিষেবা পাওয়া যায়। আইডিয়া দেশের মধ্যে একটা শহরে মাত্র সব থেকে ভালো পরিষেবা দেয় বলে রিপোর্টে জানানো হয়েছে।  মোবাইলে ইন্টারনেট পরিষেবার দিক থেকে  ভারত শ্রীলঙ্কার থেকেও পিছিয়ে রয়েছে বলে জানা গিয়েছে।