টানা পাঁচদিন বাড়িতে বসে থাকার পর অবশেষে শুক্রবার রাস্তায় বের হওয়ার সুযোগ পেলেন জম্মু-কাশ্মীরের মানুষ। শুক্রবার নামাজ পড়ার জন্য স্থানীয় মসজিদে যাওয়ার অনুমতি দেওয়া হল উপত্যকায়। তবে যাতে কোথাও কোনও গন্ডগোল না হয়, তার জন্য সব জায়গায় সতর্ক ছিলেন নিরাপত্তা কর্মীরা। অন্যদিকে এদিনই জম্মুতে ১৪৪ ধারা তুলে নেওয়া হল। একই সঙ্গে জানানো হয়েছে শনিবার থেকেই এখানে স্কুল কলেজ খুলবে।

কাশ্মীরে শুক্রবার বিধিনিষেধ আলগা করার নির্দেশ একেবারে জাতীয় নিরাপত্তা উপদেষ্টা অজিত ডোভালই দিয়েছেন বলে জানা গিয়েছে। কর্তৃপক্ষকে তিনি নির্দেশ দিয়েছিলেন যাতে কোনওভাবেই কাশ্মীরি জনগণকে হেনস্থা না করা হয়। তবে প্রতি শুক্রবার ঐতিহাসিক জামা মসজিদর সামনে যে জনসমাবেশ দেখা যায়, তা কিন্তু এইদিন ছিল না। কারণ প্রত্যেককেই তাঁর নিজের এলাকার মসজিদেই নামাজ পড়তে হবে, এমনটাই জানিয়ে দিয়েছিল কর্তৃপক্ষ।

বিধি নিষেধ আলগা করার পরও একমাত্র উত্তর কাশ্মীরের সোপোর শহরে সেনাবাহিনীকে লক্ষ্য করে পাথর ছোড়ার ছোট্ট ঘটনা ছাড়া আর কোনও উত্তেজনার ঘটনা ঘটেনি। তাও অল্প সময়ের মধ্যেই সোপোরে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনা হয়। এক নিরাপত্তা আধিকারিক জানিয়েছেন ডাললেক ও শ্রীনগর শহরের বেশ কিছু জায়গায় মানুষের স্বাভাবিক চলাফেরার উপর বিধি নিষেধ তুলে নেওয়া হয়েছে। এতে নতুন করে প্রতিবাদ-বিক্ষোভ দেখা যেতে পারে আশঙ্কায় প্রয়োজনীয় সব ব্যবস্থাই নেওয়া হয়েছিল।

জম্মুতে অবশ্য পুরোপুরি তুলে নেওয়া হয়েছে ১৪৪ ধারা। ১০ অগাস্ট থেকেই সব শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলি খোলার অনুমতি দিয়েছে জেলা প্রশাসন।