তিন দিন পরেই দিল্লির বিধানসভা ভোট। ঠিক তার আগেই জোর ধাক্কা কেল বিজেপি। শাহিনবাগের বন্দুকবাজ কপিল গুজ্জর, ঘটনার দিন ক্যামেরার সামনে জয় শ্রীরাম বলায় সকলেই ধরে নিয়েছিলেন সে বিজেপি সমর্থক। সেই নিয়ে বিরোধী নেতারা গলার শিড়া ফুলিয়ে অনেক মন্তব্যও করেন। কিন্তু দিল্লি পুলিশ মঙ্গলবার সন্ধ্যায় জানালো কপিল গুজ্জর আপ সমর্থক।

শুধু মুখের কথা নয়, কয়েকটি পুরোনো ছবি প্রকাশ করে দিল্লি পুলিশ দাবি করল, কপিল একবছর আগেই আপ দলে যোগ দিয়েছিল। শুধু তাই নয়, সেই ছবিতে অতিশি সঞ্জয় সিং মনীশ সিসোদিয়ার মতো বিশিষ্ট আপ নেতাদের উপস্থিতিতে তাকে দলে যোগ দিতে দেখা গিয়েছে।

ক্রাইম ব্রাঞ্চ জানিয়েছে কপিলের ফোন ঘাঁটতে গিয়েই এই ছবিগুলি পায় তারা। এছাড়া কপিল নিজেও জানিয়েছে, গত বছর সে আর তার বাবা দুজনেই আপ দলে যোগ দিয়েছিল। তার বাবা, মায়াবতীর দল বসপার হয়ে ২০০৮ সালে জংপুরা এবং ২০১২ সালে প্রতাপগঞ্জ থেকে ভোটে লড়েছিলেন, কিন্তু জিততে পারেননি। তারপরই তারা আপ দলে যোগ দেয়।

তদন্তে আরও জানা গিয়েছে, ঘটনার দিন কপিল গুজ্জর একটি বাইকে চেপে শাহিনবাগে এসেছিল। তারসঙ্গে সার্থক নামে আরও এক ব্যক্তি ছিল। তাকেও এই তদন্তে যুক্ত করেছে পুলিশ। সিসিটিভি থেকে পাওয়া-ফুটেজ সহ অন্যান্য প্রমাণের মাধ্যমে জানা গিয়েছে দিল্লি-নয়ডা-দিল্লি এক্সপ্রেসওয়ে হয়ে মহারাণীবাগ এবং হোলি ফ্যামিলি-তে আসে। সেখানে বাইক থেকে নেমে পিস্তলটি গুছিয়ে নিয়ে কপিল শাহিনবাগে আসে।

কিন্তু, আপ যেখানে শাহিনবাগ আন্দোলনের প্রতি সমর্থন জানিয়েছে, সেখানে আপ সমর্থক হয়ে কপিল গুজ্জর কেন সাহিনবাদে গুলি চালাতে গেল সেই বিষয়টি এখনও স্পষ্ট নয়। কিন্তু, যেভাবে সে গত ১ ফেব্রুয়ারি গুলি চালানোর পর ক্যামেরার সামনে বুক ফুলিয়ে 'জয় শ্রীরাম' বলেছিল, তার এর পিছনে কোনও ষড়ষন্ত্র থাকার গন্ধও পাচ্ছে রাজধানীর রাজনৈতিক মহল।