কংগ্রেস সাংসদ এবং লেখক শশী থারুর মঙ্গলবার জানিয়েছেন, তিনি সিটিডি নামে এক ব্রিটিশ পরামর্শদাতা সংস্থায় স্ট্র্যাটেজিক অ্যাডভাইসার হিসাবে নিযুক্ত হয়েছেন। সিটিডি-র পরামর্শদাতারা জানিয়েছেন যে শশী থারুর তাদের ক্লায়েন্টদের একটি অস্বচ্ছ এবং অপরিচিত রাজনৈতিক পরিবেশে কাজ করার, বিপরীত রাজনৈতিক এবং বিপরীত নিয়ন্ত্রক পরিবেশে কাজ করার এবং তাদের খ্যাতি এবং ভাবমূর্তির সম্ভাব্য ক্ষতির বিষয়ে কৌশলগত পরামর্শ দেবেন। তবে থারুরের এই নতুন ভূমিকায় তাঁর বিরুদ্ধে স্বার্থের সংঘাতের অভিযোগ উঠছে।

থারুরের আগে থেকেই এই সংস্থার পরামর্শদাতা গোষ্ঠীতে বেশ কয়েকজন খ্যাতনামা ব্রিটিশ বিশেষজ্ঞ এবং প্রাক্তন ব্রিটিশ রাজনীতিবিদ রয়েছেন। আছেন প্রাক্তন ব্রিটিশ জাতীয় সুরক্ষা উপদেষ্টা স্যার মার্ক লিয়াল গ্রান্ট, ব্রিটিশ প্রতিরক্ষা গোয়েন্দা বিভাগের প্রাক্তন প্রধান ক্রিস নিকোলস এবং ফ্রেন্ডস অফ ইসরাইল গোষ্ঠীর সাম্মানিক চেয়ারম্যান লর্ড স্টুয়ার্ট পোলক। এই বড় নামদের সঙ্গে যুক্ত হওয়ার পর শশী থারুর জানিয়েছেন কর্পোরেট কূটনীতি, কার্যকর আলোচনা এবং নরম শক্তি কৌশল-ই বর্তমান সসময়ে ব্যবসার প্রধান অস্ত্র।

তবে ভারতের একজন সাংসদ হয়ে তিনি কীকরে এই লন্ডন ভিত্তিক পরামর্শদাতা সংস্থার সঙ্গে যুক্ত হলেন, এই নিয়ে তাঁর বিরুদ্ধে স্বার্থের সংঘাতের প্রশ্ন উঠছে। গত বছর লন্ডনে একটি আন্তর্জাতিক বিষয়ক পরামর্শদাতা সংস্থা হিসাবে এই সিটিডি সংস্থার প্রতিষ্ঠা করেছিলেন প্রাক্তন ব্রিটিশ ব্যাঙ্কার এবং ব্যবসায়িক কৌশলবিদ শোয়েব বাজওয়া। তাঁর বাবা সেলিম নাসির বাজওয়া ব্রিটিশ নিরাপত্তা সংস্থায়কাজ করতেন। পরে অবশ্য তিনি পাকিস্তানে ফিরে আসেন। চলতি বছরের মে মাসেই তাঁর প্রয়ান ঘটে।