চন্দ্রযান-২ এখন অতীত। নতুন উদ্যোমে ময়দানে নেমেছ ইন্ডিয়ান স্পেস রিসার্চ অরগানাইজেশন। শুরু হয়েছে মিশন গগনযানের প্রস্তুতি। এই প্রথম মহাকাশে মানুষ পাঠাতে চলেছে ভারত। সবকিছু ঠিক থাকলে ২০২২-এই মহাকাশে পাড়ি দেবেন ভারতীয় মহাকাশচারীরা। ইতিমধ্যে বাছাই করা হয়ে গিয়েছে মহাকাশচারীদের। এবার শুরু হবে প্রশিক্ষণ। আগামী বছর রাশিয়ার গ্যাগারিন কসমোনাট ট্রেনিং সেন্টারে চলবে এই প্রশিক্ষণ। 

২০২০ সালে ভারতীয় মহাকাশ চারীদের প্রশিক্ষণের কথা জানিয়েছে রাশিয়াও। ভারতীয় প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীও রাশিয়ায় প্রশিক্ষণের কথা জানিয়েছেন। মিশনের ঘোষণা গত স্বাধীনতা দিবসের দিন করেন প্রধানমন্ত্রী। এই মিশনের লক্ষ্যে ৩ মহাকাশচারীকে ৭ দিনের জন্য মহাশূন্যে পাঠানো হবে। 

গগনযানের মিশনে ইসরো ও ভারতীয় বায়ুসেনা একযোগে কাজ করছে। বায়ুসেনা নিজেদের সেরা ২৫ জন পাইলট থেকে ৩ জন পাইলটকে বেছে দেবে ইসরোকে। মহাকাশে ৭দিন থাকবেন তাঁরা। বাছাই করা এই পাইলটদের বিভিন্ন শারীরিক ও মানসিক প্রশিক্ষণ হবে রাশিয়ায়। 

স্বাধীনতার ঠিক পঁচাত্তর বছরের মাথায় এই প্রকল্প বাস্তবায়িত করতে চাইছে ইসরো। আর রাশিয়া, আমেরিকা ও চিনের পর চতুর্থ দেশ হিসেবে মহাকাশে গবেষণার উদ্দেশ্যে পারি দেবেন ভারতীয় নভশ্চররা। এই প্রকল্পের জন্য প্রাথমিক খরচ ধরা হয়েছে ১০ হাজার কোটি টাকা। 

ভারতীয় প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর সঙ্গে যৌথ সাংবাদিক সম্মলনে ভারতকে গগনায়ন প্রকল্পে প্রশিক্ষণ দেওয়ার কথা জানিয়েছেন রাশিয়ান প্রেসিডেন্ট পুতিনও।