এবারের মার্কিন নির্বাচনে শুরু থেকেই বারবারহ আলোচনায় এসেছে ভারত এবং ভারতীয়দের কথা। মঙ্গলবার মার্কিন নির্বাচনের দিনও তার ব্যতিক্রম হল না। ডোনাল্ড ট্রাম্পের পুত্র 'তাঁর নির্বাচনী পূর্বাভাসের মানচিত্র' বলে একটি পৃথিবীর মানচিত্র টুইট করলেন। আর সেই অদ্ভূত মানচিত্রকে হাতিয়ার করেই নরেন্দ্র মোদীকে নিশানা করলেন কংগ্রেস নেতা শশী থারুর।

ট্রাম্প জুনিয়রের পোস্ট করা সেই মানচিত্রে দেখা যাচ্ছে বিশ্বের অধিকাংশ দেশেই রিপাবলিকান পার্টির লাল রঙে রাঙানো। অর্থাৎ, বিশ্বের বেশিরভাগ দেশ থেকেই তাঁর বাবা এবং রিপাবলিকান পার্টির প্রতি সমর্থন আসবে তার পূর্বাভাস দিয়েছেন তিনি। কিন্তু, মেক্সিকো, ভারত এবং চিনের উপর বোলানো হয়েছে  ডেমোক্র্যাটিক পার্টির নীল রঙ। শুধু তাই নয়, ভারতের মানচিত্রে নেই জম্মু ও কাশ্মীর এবং উত্তর-পূর্বের রাজ্যগুলি।  

এই বিষয়টি নিয়ে শশী থারুর টুইট করে বলেছেন, নরেন্দ্র মোদী 'ব্রোমেন্স'-এর মূল্য,স্বরূপ কাশ্মীর ও উত্তর-পূর্ব ভারতকে ভারতের থেকে বিচ্ছিন্ন করে দেওয়া হয়েছে। শুধু তাই নয় চিন-মেক্সিকো'র মতো আমেরিকার শত্রু দেশগুলির সঙ্গে এক তালিকায় রাখা হয়েছে ভারতকে। গত ফেব্রুয়ারিতে আহমেদাবাদে অনুষ্ঠিত 'নমস্তে ট্রাম্প' ইভেন্ট-এর খোঁচা দিয়ে কংগ্রেস নেতা আরও বলেন, কোটি কোটি টাকা ব্যয় করে লাভ কী হল?

জানা গিয়েছে ট্রাম্প-পুত্রের ভারতকে নীল রঙে দেখানোর পিছন একটি সমীক্ষার রিপোর্ট কারণ হতে পারে। ওই রিপোর্টে বলা হয়েছে ভারতীয়-মার্কিনদের ৭২ শতাংশ জো বাইডেনকে ভোট দেবেন। সেইসঙ্গে বাইডেনের ডেপুটি পদগে দাঁড়ৃানো কমলা হ্যারিস একজন ভারতীয় বংশোদ্ভূত। এই কারণেই নির্বাচনের সময় ট্রাম্প জুনিয়র ভারতকে বৈরি দেশ হিসাবে দেখিয়েছেন, বলরে দাবি করছেন অনেক রাজনৈতিক ও কূটনৈতিক বিশ্লেষকরা। মজার বিষয় হল, মানচিত্রে ইরান, রাশিয়া, উত্তর কোরিয়াহ মতো মার্কিন বিরোধী দেশ এবং সমগ্র অ্যান্টার্কটিকাকেও রিপাবলিকান পার্টির লাল রঙে দেখানো হয়েছে।