সন্তানের প্রধান আশ্রয়ের জায়গা হল বাবা-মা। কিন্তু, তাঁদের হাতেই যখন সন্তানের নিরাপত্তা বিঘ্ন হয় তখন ছিঃ শব্দটা উচ্চারণ করা ছাড়া আর কিছুই করার থাকে না। এমনই এক ঘটনা সামনে এল মধ্যপ্রদেশের সিরসোদা গ্রামে। যেখানে বাবার হাতেই ধর্ষণের শিকার হয়েছে ষোল বছরের একটি মেয়ে। ঘটনার সময় মেয়েটির মা বাড়িতে থাকলেও স্বামীর সঙ্গে এঁটে উঠতে পারেনি। শেষমেশ মেয়েকে বাঁচাতে তিনি পুলিশে খবর দেন। 

গোহান্দ থানার পুলিশ আধিকারিক কমলকান্ত দুবে জানিয়েছেন, শনিবার রাতের দিকে তাদের কাছে ফোনে এক মহিলা সাহায্য চান। ওই মহিলা দাবি করেছিলেন তাঁর মেয়ের ক্ষতি করছেন তাঁর স্বামী। পুলিশ ঘটনাস্থল থেকে রক্তাক্ত অবস্থায় কিশোরীটিকে উদ্ধার করে। আপাতত হাসপাতালে সে মৃত্যুর সঙ্গে পাঞ্জা লড়ছে। পুলিশ সূত্রে খবর, কিশোরী তার বাবার বিরুদ্ধে ধর্ষণের অভিযোগ এনেছে। এমনকী, কিশোরী এও জানিয়েছে যে, ধর্ষণের কথা কাউকে বললে তাকে প্রাণে মেরে ফেলারও হুমকি দিয়েছে বাবা। 

কিশোরী অভিযোগপত্রে জানিয়েছে, বাবা প্রায়শই তার মা-কে মারধর করে। এমনকী পুত্রসন্তান কেন দিতে পারেনি বলে, মা-কে ঘরে বন্দি করেও রাখে। মেয়ের অভিযোগের সঙ্গে সহমত পোষণ করেছেন মা। তিনি জানিয়েছেন, যখন তাঁর স্বামী এই অপকীর্তি করছিল, তিনি পাশের ঘরে ছিলেন।  প্রথমে কিছু বুঝতে পারেননি। কিন্তু কী হচ্ছে বুঝতে পেরে বাধা দেওয়ার চেষ্টা করেন। কিন্তু সেই সময় তাঁর স্বামী দরজা বন্ধ করে রেখেছিল। মেয়ের মুখ থেকে ঘটনা শুনে পুলিশে খবর দেন মা। ঘটনার পর থেকেই অবশ্য পলাতক অভিযুক্ত বাবা।