দিল্লির উপকণ্ঠে এখনও অব্যাহত রয়েছে কৃষক আন্দোলন। প্রচুর মানুষ জড়ো হয়েছেন সীমানা এলাকায়। বৃহস্পতিবার শীর্ষ আদালত তাই নিয়ে উদ্বেগ প্রকাশ করেছে। আন্দোলনকারী কৃষকরা করোনাভাইরাস থেকে সুরক্ষিত রয়েছে কিনা তা জানতে চেয়েছে সুপ্রিম কোর্ট। প্রধানবিচারপতির নেতৃত্বাধীন তিন বিচারপতির বেঞ্চ এদিন কেন্দ্রের সলিসিটার জেনারেল তুষার মেহতাকে এই প্রশ্ন করার পাশাপাশি কিছুটা কটাক্ষের সুরে বলে, আপনারা অবশ্যই আমাদের বললেন কী হচ্ছে? কৃষকরা কোভিড থেকে সুরক্ষিত রয়েছে কিনা তা জানেন না। কারণ তারা সেখানে একটি বিশাল সমাবেশ করছে। 


একই সঙ্গে শীর্ষ আদালত কেন্দ্রীয় সরকারের কাছে আরও একটি প্রশ্ন করেছে, আন্দোলনকারী কৃষকদের করোনাভাইরাসের সংক্রমণ হাত থেকে রক্ষা করতে বা কোভিড-১৯ এর বিরুদ্ধে সাবধানতা অবলম্বন করতে কী কী পদক্ষেপ গ্রহণ করেছে। কেন্দ্রের সলিসিটার জেনারেল তুষার মেহতা সেই প্রশ্নের উত্তর দিয়েছেন। তিনি বলেছেন, কেন্দ্রীয় সরকার স্থিতি খুঁজে বার করবে। আর তারপরই বিষয়টি নিয়ে আদালতে জানান হবে। তিনি আরও বলেছেন জমায়েতের তদন্ত করছে দিল্লি পুলিশ। তিনি জবাব দেওয়ার জন্য দুসপ্তাহ সময় চেয়েছেন। 

এই মামলার শুনানির সময় আরও দুটি আবেদনের শুনানি করা হয়। আইনজীবী সুপ্রিয়া পাণ্ডিতর পক্ষে অ্যাডভোকেট অন রেকর্ড ওম প্রকাশ পরিহার ও আইনজীবী দুশায়ন্ত তিওয়ারির দায়ের করার আবেদনের শুনানি করে আদালত। গতবছর ২৪ মার্চ দেশব্যাপী লকডাউনের ঘোষণার পর জাতীয় রাজধানীর নিজামুদ্দিন, আনন্দবিহার বাসটার্মিনালস  ও তাবলিগি জামাতের জমায়েত সমাবেশের সিবিআই তদন্ত সব বেশ কয়েকটি দাবি জানান হয়। একই সঙ্গে নিজামুদ্দিনের জমায়েতে ছাড়পত্র দেওয়ায় কেন্দ্র, দিল্লি সরকার  ও দিল্লি পুলিশের ভূমিকা নিয়েও প্রশ্ন তোলা হয়েছে।