'করোনিল' আবারও স্বস্তি পেলেন যোগগুরু রামদেব ও তাঁর সংস্থা পতঞ্জলি। চেন্নাইয়ের অরুদ্র ইঞ্জিনিয়ার্স পতঞ্জলির তৈরি  রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়ানোর ওষুধ করোনিল নাম নিয়ে আপত্তি জানিয়ে সুপ্রিম কোর্টের দ্বারস্থ হয়েছিল। 

যোগগুরু রামদেব খুব ধুমধাসের সঙ্গেই করোনিল নামের ওষুধটি চালু করেছিলেন। প্রথম দিতে দাবি করেছিলেন এই ওষুধেই করোনাভাইরাসের সংক্রমণ থেকে মুক্তি পাওয়া যায়। কিন্তু পরবর্তীকালে কেন্দ্রীয় সরকারের চাপে পড়ে কিছুটা পিছু হাঁটতে হয়। করোনা নিরাময়ের পরিবর্তে পতঞ্জলির পক্ষ থেকে দাবি করা হয়ে সংস্থার তৈরি আর্য়ুর্বেদিক ওষুধে রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়তে পারে। কিন্তু ওষুধের নাম পরিবর্তন করা হয়নি। আর এই বিষয়টিকেই হাতিয়ার করে সুপ্রিম কোর্টের দ্বারস্থ হয়েছিল চেন্নাইয়ের অরুদ্র। 

সংস্থার আবেদনের প্ররিপ্রেক্ষিতে সুপ্রিম কোর্ট বৃহস্পতিবার বলেছে করোনা আবহের এই সময় যদি করোনিল নামটি ব্যবহার করতে নিষেধ করি তাহলে পণ্যটি সমস্যয় পড়বে। তবে সুপ্রিম কোর্ট আবেদনকারীকে মাদ্রাজ হাইকোর্টে শুনানির জন্য অপেক্ষা করতে বলেন। আগামী ৩ সেপ্টেম্বর মাদ্রাজ হাইকোর্টে শুনানি রয়েছে। মাদ্রাজ হাইকোর্টের সিঙ্গেল বেঞ্চ এই মামলায় অরুদ্র সংস্থার পক্ষেই রায় দিয়েছিল। কিন্তু ডিভিশন বেঞ্চ সেই আদেশের ওপর স্থগিতাদেশ জারি করে। 

পরীক্ষার্থীরা চাইছে যে কোনও মূল্য জেইই ও নিট পরীক্ষা দিতে, দাবি করলেন কেন্দ্রীয় শিক্ষামন্ত্রী ...

ইজরায়েলি অ্যাওয়াকস হবে লাদাখ সীমান্তের ভারতীয় বাহিনীর চোখ, নজর রাখবে লাল ফৌজের গতিবিধির ওপর ...

১৯৯৩ সাল থেকে চেন্নাইয়ের অরুদ্র সংস্থাটি স্যানিটাইজার ও রাসায়নিক তৈরি করে। সুপ্রিম কোর্ট অরুদ্র ইঞ্জিনিয়ার্স লিমিটেডকে পতঞ্জলির করোনিল নাম ব্যবহার থেকে বিরত থাকার জন্য হাইকোর্টেই মামলা চালিয়ে যাওয়ার কথা বলেছে। 

রথযাত্রার প্রসঙ্গে উত্থাপন করেও মিলল না মহরমের শোকযাত্রার অনুমতি, কেন দেওয়া হল না অনুমতি ...