কর্ণাটকে সতেরো বিদ্রোহী বিধায়কের বিধায়ক পদ খারিজ করার সিদ্ধান্ত বহাল রাখল সুপ্রিম কোর্ট। তবে একই সঙ্গে শীর্ষ আদালত জানিয়ে দিয়েছে, বিধায়ক পদ খারিজ হলেও উপনির্বাচনে লড়তে বাধা নেই এই বিধায়ক পদ খারিজ হওয়া এই নেতাদের। 

গত জুলাই মাসে কর্ণাটকে বিরোধী শিবিরে যোগ দেন কর্ণাটকে কংগ্রেস এবং জেডিএস- এই সতেরো বিধায়ক। পরবর্তী নির্বাচন পর্যন্ত তাঁদের বিধায়ক পদ খারিজ করে দেন কর্ণাটক বিধানসভার তৎকালীন স্পিকার রমেশ কুমার। সতেরো বিধায়কের সমর্থন হারানোয় কর্ণাটকে কংগ্রেস- জেডিএস জোট সরকারের পতন ঘটে। এই সিদ্ধান্ত চ্যালেঞ্জ করেই শীর্ষ আদালতে মামলা করেছিলেন বিদ্রোহী বিধায়করা। 

এ দিন রায় দিতে গিয়ে সুপ্রিম কোর্টের তিন বিচারপতি এনভি রামন, সঞ্জীব খন্না এবং কৃষ্ণ মুরারির ডিভিশন বেঞ্চ অবশ্য বিরোধী বিধায়কদেরই সমালোচনা করে। বিচারপতিরা বলেন, 'যেভাবে হাইকোর্টকে টপকে সরাসরি এই মামলা সুপ্রিম কোর্টে দায়ের করা হয়েছে, আমরা তা ভাল ভাবে নিচ্ছি না।'

আরও পড়ুন- আপত্তি নেই রাষ্ট্রপতির, মহারাষ্ট্রে জারি হল ৩৫৬ ধারা, এখনও বৈঠক করছে কংগ্রেস-এনসিপি

আরও পড়ুন- অযোধ্যার পর বুধবার আসছে আরও এক বড় রায়, উত্তরসূরীদের অস্বস্তি কি বাড়াবেন গগৈ

কর্ণাটক বিধানসভার তৎকালীন স্পিকার রমেশ কুমার বিদ্রোহী বিধায়কদের পূর্ণ মেয়াদের জন্য বরখাস্ত করেছিলেন। যার অর্থ পরবর্তী নির্বাচন পর্যন্ত তাঁরা ভোটে লড়তে পারতেন না। এ দিন বিধায়কদের বরখাস্ত করার সিদ্ধান্তকে সঠিক বলে রায় দিলেও তাঁদের উপনির্বাচনে লড়ার অনুমতি দিয়েছে সুপ্রিম কোর্ট। 

আগামী ৫ ডিসেম্বর কর্ণাটকে উপনির্বাচন রয়েছে। মনে করা হচ্ছে, বিদ্রোহী বিধায়কদের টিকিট দেবে বিজেপি। এই বিদ্রোহী বিধায়করা উপনির্বাচনে জয়লাভ করলে তাঁদের মন্ত্রী হতেও সমস্যা নেই বলে জানিয়ে দিয়েছে শীর্ষ আদালত।