চলতি বছরের শুরুতে শ্রীনগর-জম্মু হাইওয়েতে ধরা পড়েছিল জম্মু ও কাশ্মীরের তৎকালীন ডিএসপি দাবিন্দর সিং। দুইজন হিজবুল মুজাহিদিন জঙ্গিকে গোপনে তিনি গাড়িতে করে নিরাপদ স্থানে নিয়ে যাওয়ার অভিযোগ উঠেছিল তাঁর বিরুদ্ধে। শুক্রবার দিল্লির এক আদালত তার জামিন মঞ্জুর করল।

দাবিন্দর সিংহ ও হিজবুল জঙ্গি ইরফান শফির মীরের বিরুদ্ধে দিল্লি পুলিশের বিশেষ শাখা মামলা দায়ের করেছিল। কিন্তু, ৯০ দিনের মধ্যেও পুলিশ তাদের বিরুদ্ধে  অভিযোগপত্র দাখিল করতে পারেননি। সেই যুক্তিতেই আদালত দুইজনকেই জামিন দিয়েছে। এক লক্ষ টাকার ব্যক্তিগত বন্ডে এবং এক লক্ষ টাকার জামানতের বিনিময়ে তাদের জামিনে মঞ্জুর করা হয়েছে।

গত বুধবারই দাবিন্দর সিং এবং ইরফান শফি মীর জামিনের জন্য আদালতে আবেদন করেছিল। তাদের দাবি ছিল, তাদের এই মামলায় 'ভুলভাবে এবং মিথ্যাভাবে জড়িত' করা হয়েছে। আবেদনপত্রে আরও বলা হয়, ভারতের ঐক্য, অখণ্ডতা, সুরক্ষা বা সার্বভৌমত্বকে তারা হুমকির মুখে ফেলেছে, বা সম্ভাব্য হুমকি তৈরির উদ্দেশ্যে তারা কোনও কাজ করেছে বা ষড়যন্ত্র করেছে, এমন কোনও বৈধ প্রমাণ নেই। এমন কোনও প্রমাণ নেই যে তারা সন্ত্রাসবাদী হামলা চালানোর ষড়যন্ত্র করেছিল।

দাবিন্দর সিং-কে ১৬ জুন পর্যন্ত জম্মু ও কাশ্মীরের হীরানগর কারাগারে বিচার বিভাগীয় হেফাজতে রাখা হয়েছিল। দাবিন্দর সিং ছাড়াও অভিযুক্ত জাভেদ ইকবাল, সৈয়দ নাভেদ মোস্তাক এবং ইমরান শফি মীরও বিচার বিভাগীয় হেফাজতেই রয়েছে। হত মার্চ মাসে দিল্লি পুলিশের বিশেষ শাখা দাবিন্দর সিং-কে হীরানগর কারাগার থেকে দিল্লিতে নিয়ে এসেছিল অন্য একটি মামলায় জিজ্ঞাসাবাদের জন্য।

এর আগে পুলিশ আদালতকে জানিয়েছিল শোপিয়ান জেলার হিজবুল মুজাহিদিন কমান্ডার মুস্তাক ও অন্যান্য জঙ্গিরা দিল্লি ও দেশের অন্যান্য অংশে সন্ত্রাসবাদী হামলা চালানোর পরিকল্পনা করেছিল। নিরাপত্তার ঘেরাটোপে থাকা বেশ কয়েকজন ব্যক্তিকে হত্যার পরিকল্পনা করেছিল। এই প্রসঙ্গে দিল্লি পুলিশ একটি এফআইআর দায়ের করেছিল। তাতে বলা হয়েছিল জম্মু-কাশ্মীর ও পঞ্জাবের যুবকদের সন্ত্রাসবাদী কর্মকাণ্ড চালানোর জন্য প্রশিক্ষণ দেওয়া হচ্ছে। কিন্তু, এইসব দাবির সপক্ষে এতগুলো দিন পেরিয়ে গেলেও তারা কোনও প্রমাণ জোগার করতে পারেনি।