মহারাষ্ট্রে সরকার গঠনকে কেন্দ্র করে ভারতীয় রাজনীতিতে কিছু অভূতপূর্ব দৃশ্য তৈরি হচ্ছে। উদ্ধবের শপথগ্রহণ অনুষ্ঠানের আসার জন্য কংগ্রেস সভানেত্রী সনিয়া গান্ধী ও প্রাক্তন প্রধানমন্ত্রী মনমোহন সিং-কে আমন্ত্রণ জানানোর জন্য শিবসেনা প্রধান উদ্ধব ঠাকরের মুম্বই থেকে দিল্লি পাঠালেন পুত্র আদিত্য ঠাকরে-কে। ভিন্নধর্মী রাজনীতির নবীন-প্রবীন প্রজন্ম মিলে মিশে অদ্ভূত কিছু ফ্রেম তৈরি হল।

বৃহস্পতিবার শপথগ্রহ অনুষ্ঠানের আগে এদিন সন্ধ্যায় সবকিছু ঠিকঠাক করতে শেষবারের মতো মুম্বইয়ের ওয়াইবি চভন ভবনে আলোচনায় বসেন শিবসেনা, এনসিপি, কংগ্রেস - তিন দলের নেতারা। শিবসেনার পক্ষে উদ্ধব ঠাকরে সঞ্জয় রাউত, এনসিপির শরদ পওয়ার, সুপ্রিয়া সুলে প্রফুল্ল প্যাটেল এমনকী অজিত পওয়ারও বৈঠকে উপস্থিত ছিলেন। কংগ্রেসের পক্ষে রাজ্যনেতাদের পাশাপাশি সনিয়া গান্ধীর প্রতিনিধি হিসেবে আহমেদ প্যাটেল উপস্থিত ছিলেন।

এরমধ্যেই আদিত্য ঠাকরে-কে দিল্লির বিমান ধরতে পাঠিয়ে দেন উদ্ধব। দিল্লিতে নেমে প্রথমেই সনিয়া গান্ধীর বাসভবনে যান আদিত্য। রাত পৌনে দশটা নাগাদ কংগ্রেস সভানেত্রীর বাড়ি হাজির হন তিনি। সনিয়ার সঙ্গে তরুণ রাজনীতিবিদ ছবিও তোলেন। এরপর তিনি যান প্রাক্তন প্রধানমন্ত্রী মনমোহল সিং-এর বাড়ি।

সাংবাদিকদের আদিত্য ঠাকরে জানিয়েঠেন, তিনি শুধু আমন্ত্রণ জানাতে নয়, নতুন সরকারের জন্য আশীর্বাদ ও শুভেচ্ছা নিতে এসেছিলেন। এই দুই প্রবীন রাজনীতিবিদের গাইডেন্স-ও নতুন সরকার পরিচালনার জন্য অত্যন্ত প্রয়োজনীয় বলে মন্তব্য করেন তিনি। তবে কি সনিয়া, রাহুল, মনমোহন সকলকেই বৃহস্পতিবার উদ্ধব ঠাকরের শপথগ্রহণ মঞ্চে দেখা যাবে? এই প্রশ্নের উত্তর কিন্তু 'দেখা যাক' বলে এড়িয়ে গিয়েছেন আদিত্য।