একটু একটু করে স্বাভাবিক হচ্ছে উপত্যকা। জম্মু ও কাশ্মীরের বিশেষ মর্যাদা প্রদানকারী ৩৭০ ধারা বাতিলের সিদ্ধান্তের পর কার্যত বন্দিদশায় দিন কাটাচ্ছিলেন উপত্যকার সাধরণ মানুষ। জম্মু ও কাশ্মীর পুনর্গঠন বিল প্রস্তাবের পর থেকে জম্মু ও কাশ্মীরে যোগাযোগের মাধ্যম হিসাবে ইন্টারনেট ও মোবাইল পরিষেবা বন্ধ করে দেওয়ার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়।এইভাবে ১২দিন উপত্যকার মানুষের সঙ্গে যোগাযোগ কার্যত বিচ্ছিন্ন ছিল গোটা দেশের। 

তবে চিফ সেক্রেটারি বিভিআর সুব্রমহ্মন্যম শুক্রবার একটি সাংবাদিক বৈঠকে জানিয়েছেন, শনিবার থেকে উপত্যকায় ল্যান্ডলাইন ফোন পরিষেবা পুনরায় চালু করা হবে। তিনি আরও বলেন যে, শ্রীনগরের বিশাল এলাকা জুড়ে এই যোগাযোগ মাধ্যম চালু করা হবে। সেইসঙ্গে তিনি জানান, শুক্রবার থেকেই উপত্যকার একাধিক এলাকার সরকারি দফতরে স্বাভাবিক কাজকর্ম বজায় ছিল। 

পরমাণু অস্ত্র ব্যবহারের নীতিতে আসতে পারে পরিবর্তন, ইঙ্গিত দিলেন প্রতিরক্ষামন্ত্রী

পাশাপাশি তিনি এও জানান যে, জম্মু ও কাশ্মীরে ১২টি জেলায় স্বাভাবিক পরিস্থিতি বজায় রাখা হয়েছে এবং পাঁচটি জেলায় কিছু সীমিত বিধি-নিষেধ আরোপ করা হয়েছে। সূত্রের খবর, শনিবার সকাল থেকেই জম্মু ও কাশ্মীরের একাধিক এলাকায় চালু করা হয় ২-জি ইন্টারনেট পরিষেবা। তবে এখনও অবধি জম্মু, সাম্বা, কাঠুয়া, উধমপুর ও রেসাই -তেই এই ইন্টারনেট পরিষেবা চালু করা হয়েছে।  সেইসঙ্গে কাশ্মীরের প্রায় ১৭টি টেলিফোন এক্সচেঞ্জ পরিষেবাও চালু করা হয়েছে বলে খবর।