লাইন অফ কন্ট্রোলের সামনে হঠাৎ করে পাকিস্তান সেনা বাড়াতে শুরু করেছে।  ব্যাপক পরিমাণে মজুত করতে শুরু করেছে আর্টিলারি বন্দুকের সংখ্যা। যুদ্ধ বিরতি নীতি লঙ্ঘন করে  পাকিস্তান গুলি বর্ষণ অব্যাহত রাখতে সেনা মজুদের পরিমাণ বাড়াচ্ছে বলে মনে করা হচ্ছে। সীমান্তে নতুন করে অস্থিরতা সৃষ্টির জন্য পাকিস্তান কোনও পরিকল্পনা করছে বলেও আশঙ্কা প্রকাশ করেছে বিভিন্ন মহল। 

নিরাপদ নয় ভারতীয় রেল, চলন্ত ট্রেনেই তরুণীর যৌন হেনস্তার চেষ্টা

ভারতীয় সেনা বাহিনী সীমান্তে পাক সেনা  বৃদ্ধির রিপোর্ট ইতিমধ্যে কেন্দ্রীয় সরকারের কাছে পাঠিয়েছে। এই বিষয়ে কেন্দ্র আন্তর্জাতিক মহলকে ইতিমধ্যে রিপোর্ট পাঠিয়েছে বলে জানা গিয়েছে।  ভারত ৫ অগস্ট জম্মু ও কাশ্মীর থেকে ৩৭০ ধারা তুলে নেয়। জম্মু ও কাশ্মীর থেরে লাদাখকে পৃথক করে দুটি কেন্দ্র শাসিত অঞ্চলে পরিণত করার সিদ্ধান্ত নয়  মোদী সরকার। এরপর থেকেই এলওসির কাছে পাকিস্তান সেনার সংখ্যা ক্রমেই বাড়িয়ে চলেছে। 

হরিদ্বারের হর কি পৌরী-তে বোমা হামলার হুমকি, সরাসরি ফোন মুখ্যমন্ত্রীকেই

সেনাবাহিনীর পাঠানো রিপোর্টে জানানো হয়েছে, এলওসি থেকে কয়েক মিটার দূরে পাকিস্তানে বিভিন্ন জঙ্গিগোষ্ঠীর কার্যক্রম ক্রমেই বেড়ে গিয়েছে। জঙ্গিরা  ভারতে ঢোকার জন্য উপযুক্ত সময়ের অপেক্ষা করছে। রিপোর্টে বলা হয়েছে, পাকিস্তানে স্পেশাল অপারেটিং উইন স্পেশাল সার্ভিস গ্রুপ ( এসএসজি)  এলওসির কাছে প্রায় ২,০০০ কর্মী মোতায়েন করেছে। ইতিমধ্যে সেখানে ৯০,০০০ পাক সেনা সেখানে মোতায়েন করেছে।  এলওসিতে  প্রায় ১,১৩,০০০ জন সেনা নিযুক্ত রয়েছেন বলে জানা গিয়েছে।