তামিলনাড়ুর এক সুপার স্পেশালিটি হাসপাতালের প্রায় দেড় লক্ষ রোগীর তথ্য হ্যাক, তথ্যপিছু ১০০ ডলার দর হাঁকল হ্যাকাররা

| Dec 03 2022, 09:07 PM IST

Hack
তামিলনাড়ুর এক সুপার স্পেশালিটি হাসপাতালের প্রায় দেড় লক্ষ রোগীর তথ্য হ্যাক, তথ্যপিছু ১০০ ডলার দর হাঁকল হ্যাকাররা
Share this Article
  • FB
  • TW
  • Linkdin
  • Email

সংক্ষিপ্ত

তামিলনাড়ুর শ্রী সরণ মেডিক্যাল সেন্টার নামে একটি সুপার স্পেশালিটি হাসপাতালের প্রায় দেড় লক্ষ রোগীর তথ্য ডার্ক ওয়েবের মাধ্যমে অন্য সংস্থার কাছে বিক্রি করে দেওয়ার ঘটনা ঘটলো শনিবার।

ফের এমসের ঘটনার পুনরাবৃত্তি। এবার তামিলনাড়ুর এক বেসরকারি হাসপাতালের সার্ভার হ্যাক করে ওই হাসপাতালের অন্তত দেড় লক্ষ রোগীর তথ্য বিক্রি করার অভিযোগ উঠলো ডার্ক ওয়েব ব্যবহারকারীদের বিরুদ্ধে। তামিলনাড়ুর শ্রী সরণ মেডিক্যাল সেন্টার নামে একটি সুপার স্পেশালিটি হাসপাতালের প্রায় দেড় লক্ষ রোগীর তথ্য ডার্ক ওয়েবের মাধ্যমে অন্য সংস্থার কাছে বিক্রি করে দেওয়ার ঘটনা ঘটলো শনিবার। ঘটনার কথা প্রকাশ্যে আসতেই নড়ে চড়ে বসে ওই বেসরকারি হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ। ওই হাসপাতালের আইটি বিভাগের দায়িত্বে থাকা সংস্থা ক্লাউডসিক তড়িঘড়ি সাইবার ক্রাইম বিভাগে অভিযোগ দায়ের করলে ঘটনার তদন্তে নামে পুলিশ।

সূত্রের খবর, যে সার্ভার ব্যবহার করা হত ওই হাসপাতালে, রুগীদের তথ্য স্টোর করতে তা হ্যাক হয়ে যায় শনিবার। সেই কারণে রোগীদের নাম-ঠিকানা, জন্ম তারিখ, অভিভাবক এবং চিকিৎসকের নাম সংক্রান্ত যাবতীয় তথ্য সব অনলাইনে প্রকাশ পেয়ে যায় ডার্ক ওয়েব ব্যবহারকারীদের কাছে । এবং ওই সাইবার অপরাধীরা প্রতিটি রোগীর তথ্য ১০০ ডলার বা ভারতীয় মুদ্রায় ৮ হাজার টাকা দরে বিক্রি করে দে অন্যত্র । যদি কেউ ওই তথ্য একসঙ্গে কিনে নিতে চান তাহলে মাত্র ৩০০ ডলার বা ভারতীয় মুদ্রা প্রায় ২৮ হাজার টাকার বিনিময় তা কিনতে পারেন বলে জানায় হ্যাকাররা। এমনকি ওই তথ্য পুনরায় অনলাইনে বিক্রি করলে তার দর হবে ৩২ হাজার টাকা এমন কোথাও বিজ্ঞাপন দিয়ে জানায় ওই হ্যাকারের দল । যদিও এই বিষয়ে ওই হাসপাতাল কর্তৃপক্ষের তরফে কোনও মন্তব্য করা হয়নি এখনও।

Subscribe to get breaking news alerts

প্রসঙ্গত, এমসের ৫টি সার্ভারে সাইবার হানার অভিযোগ উঠেছে। সূত্রের দাবি, এমসে চিকিৎসা করিয়েছেন এমন ভিভিআইপি-সহ বহু রাজনীতিকের তথ্য হাতিয়ে নিয়ে তা ডার্ক ওয়েবে বিক্রি করে দিয়েছেন চিনের হ্যাকারেরা। যদিও হ্যাকিংয়ের অভিযোগ অস্বীকার করেছেন এমস কর্তৃপক্ষ।