মহারাষ্ট্রে শিবসেনা, কংগ্রেস ও এনসিপি জোট করতে চলেছে। এই জোটের নাম মহারাষ্ট্র বিকাশ আঘাদি করার পরিকল্পনা করা হয়েছে। তবে জোটের এই নামের বিষয়ে কোনও চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়নি। সংবিধান মেনে এই জোটটি পারিচালনা করা হবে বলে জানানো হয়েছে। 

বৃহস্পতিবার দিল্লিতে কংগ্রেসের কার্যনির্বাহী কমিটির বৈঠক হওয়ার পরে আদর্শগত ভাবে আলাদা শিবসেনার সঙ্গে কংগ্রেস ও এনসিপির জোট গঠনের সূত্র পাওয়া যায় বলে জানা গিয়েছে।  এর আগে বুধবার রাতে কংগ্রেসের কার্যনির্বাহী কমিটির সঙ্গে এনসিপির শীর্ষস্থানীয় নেতৃত্বরা বৈঠকে বসেছিলেন বলে জানা গিয়েছে।  এই জোট সংবিধানের ওপর জোর দিয়ে কাজ করবে বলে বৈঠকের শেষে জানানো হয়েছে।  বৃহস্পতিবার বৈঠকে কংগ্রেসের শীর্ষস্থানীয় নেতৃত্বের পাশাপাশি এনসিপির প্রবীণ নেতারা উপস্থিত ছিলেন বলে জানা গিয়েছে। কংগ্রেসের  অশোক চৌহান, বালাসাহেব থ্রোট, কেসি পাদভি প্রমুখরা উপস্থিত ছিলেন। অন্য দিকে এনসিপির নেতৃত্বের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন জয়ন্ত পাটিল, নবাব মালিক, হাসান মুশাফির প্রমুখরা। 

কংগ্রেসের নেতৃত্ব আশা প্রকাশ করেছেন, যে মহারাষ্ট্রে শীঘ্রই রাজনৈতিক উত্তেজনা শীঘ্রই  সমাপ্ত হবে।  মহারাষ্ট্রে জোট সরকার গঠন করবে বলেও কংগ্রেসের তরফে আশা প্রকাশ করা হয়।  এনসিপির মুখপাত্র  নবাব মালিক সেনার সঙ্গে জোটের জন্য প্রয়োজনীয় কথা হয়েছে। এই জোট নিয়ে কোনো সমস্যা নেই। এনসিপির এক প্রবীণ নেতা বলেছেন, ৩০ নেভম্বর ঝাড়খণ্ডে প্রথম দফা বিধানসভা নির্বাচনের মধ্যেই মহারাষ্ট্রে সরকার গঠনের প্রবল সম্ভাবনা রয়েছে।  মহারাষ্ট্রের মুখ্যমন্ত্রীর পদটা ভাগ হবে হলেও এনসিপির তরফে জানানো হয়েছে। প্রথম আড়াই বছরের জন্য মুখ্যমন্ত্রী হবে শিবসেনা দল থেকে। পরবর্তী আড়াই বছরের জন্য মহারাষ্ট্রের মুখ্যমন্ত্রী হবে এনসিপি দল থেকে।