রাজ্যের শাসক ও বিরোধী দলের মধ্য়ে আবারও শুরু হয়ে গেল বাকযুদ্ধ। দেশের অর্থনীতি পরিচালনায় পুরোপুরি ব্যর্থ কেন্দ্রীয় অর্থমন্ত্রী নির্মালা সীতারমন।  এই অভিযোগ তুলে তৃণমূলের সাংসদ কল্যাণ বন্দ্যোপাধ্যায় বিষাক্ত নাগিনীর সঙ্গে তাঁর তুলনা করেন। পেট্রোপণ্য মূল্য বৃদ্ধির প্রতিবাদে বাঁকুড়ার দলীয় সভায় থেকে তিনি বলেন বিষাক্ত নাহিনীর দংশনে যেমন একের পর এক মৃত্যু হয় দেশেও সেই রকম হচ্ছে। দেশের সবথেকে খারাপ আর্থমন্ত্রী হিসেবেই নির্মলা সীতারমনকে চিহ্নিত করেছেন কল্যাণ। পাশাপাশি প্রধানমন্ত্রীরও তীব্র সমালোচনা করে তাঁর পদত্যাগ দাবি করেছেন তিনি। 

এখানেই থেমে থাকেননি কল্যাণ বন্দ্যোপাধ্যা। তিনি নিশানা করেন রাজ্যের বিজেপির প্রধান দিলীপ ঘোষকেও। তিনি বলেন, বিজেপির লাল চোখ যদি হলুদ করার মত ক্ষমতা থাকে তবেই তৃণমূল কংগ্রেস করুন। এই দলের কর্মীরা রাজ্যে সিপিএমের লাল সন্ত্রাসের বিরুদ্ধে কোমর বেঁধে লড়াই করে ক্ষমতা থেকে সরিয়ে দিয়েছে বলেও মন্তব্য করেন তিনি। পাশাপাশি আগামী বিধানসভা নির্বাচনে বিজেপিকে মাটি মিশিয়ে দেওয়ার জন্য দলের নেতা কর্মীদের কাছে আহ্বান জানান কল্যাণ বন্দ্যোপাধ্যায়। 

কল্যাণ বন্দ্যোপাধ্যায় এই বিতর্কিত মন্তব্যে রীতিমত ক্ষুব্দ রাজ্যের নেতা কর্মীরা। রাজ্য সভাপতি  দিলীপ ঘোষ বলেন, দলীয় নেতা কর্মীদের ওপর থেকে নিয়ন্ত্রণ উঠে গেছে তণমূল সুপ্রিমোর। গোটা দলটাই দূর্ণীতিগ্রস্ত। মানুষের নজর ঘোরাতে এই জাতীয় বিতর্কিত মন্তব্য করা হচ্ছে বলেও তাঁর অভিযোগ। দিলীপ ঘোষ আরও বলেন দলীয় নেতা কর্মীরা অনেক সময় হতাশা গ্রস্ত হয়েও এই জাতীয় মন্তব্য করেছেন। কল্যাণ বন্দ্যোপাধ্যায় নির্মলা সীতারমনকে যে ভাষায় আক্রমণ করেছেন তার নিন্দা করেছেন রাজ্যেরই বহু মানুষ। রাজনৈতিক মন্তব্য শালীনতা বজায় রাখা উচিৎ বলেও দাবি করেছেন অনেকে।