বাংলা নিয়ে আবার সরব রাজ্যপাল জগদীপ ধনকড়। জাতীয় সংবাদমাধ্যমে দেওয়া এক সাক্ষাতকারে ধনকড়ের দাবি তৃণমূল সরকার রাজ্যে চূড়ান্ত অব্যবস্থা তৈরি করেছে। রাজ্যে কার্যত জঙ্গলের শাসন চলছে বলে দাবি করেছেন রাজ্যপাল। দুষ্কৃতীরা সরকারের মদতে প্রকাশ্যে ঘুরে বেড়াচ্ছে আর একের পর এক অপরাধ করে চলেছে। 

রাজ্যের এই পরিস্থিতিতে তিনি কিছুতেই চুপ করে বসে থাকবেন না বলে বুধবার হুঁশিয়ারি দিয়েছেন ধনকড়। এদিন তিনিবলেন, বাংলায় যে নৈরাজ্য তৈরি হয়েছে, তার জন্য দায়ী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের সরকার।  এভাবে চলতে পারে না, রাজ্য আইনের শাসন প্রতিষ্ঠা পাওয়া জরুরি বলে মন্তব্য করেছেন রাজ্যপাল। 

এই পরিস্থিতিতে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় নিয়ন্ত্রিত প্রশাসনও চুপ করে রয়েছে বলে দাবি রাজ্যপালের। রাজ্য পুলিশের ডিজিপিকে একাধিকবার সতর্ক করা সত্ত্বেও কোনও ব্যবস্থা নেওয়া হয়নি বলে অভিযোগ করেন তিনি। তিনি বলেন রাজ্যে ক্রমশ বাড়ছে নির্বাচন পরবর্তী হিংসা। অথচ তৃণমূল সরকারের কোনও হুঁশ নেই।  

এদিন রাজ্যপালের প্রশ্ন, হিংসায় যাঁরা ক্ষতিগ্রস্থ হয়েছেন, তাঁদের নিরাপত্তার আশ্বাস কোথায়, তাঁদের ক্ষতিপূরণ কোথায়। তার বদলে তৃণমূলের হার্মাদরা গোটা রাজ্যে দাপিয়ে বেড়াচ্ছে। বাংলার মানুষ এখন পুলিশকেই ভয় পায় বলে দাবি রাজ্যপালের। তাঁর মতে গোটা দেশে এরকম অনিয়ন্ত্রিত ও স্বেচ্ছাচারী রাজ্য সরকার নেই। 

শুধু রাজ্যপালই নন, মঙ্গল ও বুধবারের দিল্লি সফরে রাজ্য সম্পর্কে কিছুটা এরকমই অভিযোগ কেন্দ্রের কাছে করেছেন বিরোধী দলনেতা শুভেন্দু অধিকারী। বিজেপির সর্বভারতীয় সভাপতি জেপি নাড্ডা, কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ ও প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর সঙ্গে দেখা করে একাধিক অভিযোগ তুলেছেন শুভেন্দু। তারআগে রাজ্যপালের সঙ্গে দেখা করে রাজ্যে চলা রাজনৈতিক হিংসা নিয়ে বিস্তারিত তথ্য দেন শুভেন্দু।