মঙ্গলবার দেশে ৪৬ হাজার ছিল আক্রান্তের সংখ্যা। বুধবার সকালে সেখান থেকে একলাফে অনেকটাই বেড়ে গেল সংখ্যাটা। স্বাস্থ্যমন্ত্রকের দেওয়া তথ্য অনুযায়ী বুধবার সকাল পর্যন্ত দেশে করোনা সংক্রমণের সংখ্যা ৪৯,৩৯১। এঁদের মধ্যে সুস্থ হয়ে উঠেছেন ১৪,১৮২। ফলে বর্তমানে সক্রিয় করোনা কেস দেশে রয়েছে ৩৩,৫১৪। আর করোনা সংক্রমণে ভারতে মৃতের সংখ্যা বেড়ে হয়েছে ১৬৯৪।

 

দেশে যখন ক্রমেই বেড়ে চলেছে সংক্রমণের সংখ্যা তখন মানুষের মধ্যে সচেতনতা বাড়াতে এক গুরুত্বপূর্ণ পদক্ষেপ করল নয়ডা ও গৌতম বুদ্ধ নগরের পুলিশ। ফোনে আরোগ্য সেতু অ্যাপ না থাকা এবার থেকে  শাস্তিযোগ্য অপরাধ হিসেবে বিবেচিত হবে বলে জানান হয়েছে পুলিশের তরফে। এখন থেকে নয়ডা এবং গ্রেটার নয়ডাতে যারা থাকেন তাঁদের ফোনে এই অ্যাপ না থাকলে জরিমানা অথবা জেলে যেতে হবে। একই আদেশ প্রযোজ্য হবে এই শহরে প্রবেশকারীদের জন্যও।

ডিসিপি অখিলেশ কুমার জানান, “স্মার্টফোন যাদের আছে তাঁদের কাছে এই অ্যাপ্লিকেশনটি না থাকলে ভারতীয় দণ্ডবিধির ১৮৮ ধারায় আটক করা হবে। এর পর, ম্যাজিস্ট্রেট সিদ্ধান্ত নেবেন, ওই ব্যক্তির বিচার হবে না জরিমানা করা হবে অথবা কোনও সতর্কতা দিয়ে ছেড়ে দেওয়া হবে।” সাধারণত সরকারি কোনও নির্দেশ অমান্য করলে ১৮৮ ধারা বলবৎ করা হয়। সেক্ষেত্রে কোনও ব্যক্তির ১০০০ টাকা জরিমানা অথবা ৬ মাসের জেলও হতে পারে।

লকডাউনের মেয়াদ বাড়িয়ে দেওয়া হল ২৯ মে পর্যন্ত, ১৪৪ ধারা জারি থাকবে চলতি মাসের শেষপর্যন্ত

সত্যি 'সেলুকাস' ভারত বড়ই বিচিত্র, অর্ধভুক্ত দেশে ৫২ হাজার টাকার মদ কিনলেন এক ক্রেতা

করোনার দাপটে বিধ্বস্ত ভারতীয় অর্থনীতি, রঘুরাম রাজনের পর অভিজিতের কাছে দাওয়াই চাইলেন রাহুল

গৌতম বুদ্ধ নগরে মাস্ক ছাড়া কোনও ব্যক্তি রাস্তায় বেরোলে বা কেউ প্রকাশ্যে থুতু ফেললে তার বিরুদ্ধেও শাস্তিমূলক ব্যবস্থা নিচ্ছে পুলিশ। গৌতম বুদ্ধ নগর রেড জোন তাই এখানে লকডাউনের  সব নিয়ম মেনেই সব ধরনের জমায়েত বন্ধ। একথাও জানিয়েছেন ডেপুটি পুলিশ কমিশনার। সংক্রমণ রুখতে ১৭ মে পর্যন্ত  ১৪৪ ধারাও জারি করেছে  পুলিশ। 

'আরোগ্য সেতু' মোবাইল অ্যাপের মাধ্যমে কেন্দ্রীয় সরকার করোনা সংক্রমণ রোখার জন্য প্রয়োজনীয় নির্দেশ দিয়ে থাকে।  করোনার বিরুদ্ধে লড়াইয়ে স্বাস্থ্য পরামর্শও মেলে এই অ্যাপের মাধ্যমে।