শনিবার সকাল ১১ টা থেকে আড়াইঘন্টার দীর্ঘ বক্তৃতায় অর্থমন্ত্রী নির্মলা সীতারমণ সংসদে এই দশকের প্রথম কেন্দ্রীয় বাজেট পেশ করলেন। কিন্তু, তাতেও চাঙ্গা হহল না শেয়ার বাজার। এদিন বাজেট বক্তৃতা চলার মাঝে বেলা দেড়টা নাগাদ প্রায় ৬৫৫.৩৭ পয়েন্ট নেমে ৪০,০৬৮.১২-তে দাঁড়ায় বম্বে স্টক এক্সচেঞ্জের সূচক। আর নিফটি ৫০-এর সূচক ২০৪.৫৫ পয়েন্ট নেমে দাঁড়ায় ১১,৭৫৭.৫৫-এ।

এদিন দিনের শুরু থেকেই ঝিমিয়ে ছিল বাজার। শুরুর সময় দুই সূচকই ০.৪৮ শতাংশ নিচে শুরু করে। পরে অবশ্য অবস্থার কিছুটা উন্নতি হয়। সেনসেক্স পৌঁছায় ৪০,৭২৫ এবং নিফটি ১১,৯৬২-তে। আশা করা হয়েছিল বাজেট পেশের পর উন্নতি ঘটবে সূচকে, কিন্তু কার্যক্ষেত্রে আরও পতন ঘটেছে সূচকে।  

এদিন, টেক মাহিন্দ্রা, পাওয়ারগ্রিড, টাটা স্টিল, এনটিপিসি, কোটাক ব্যাঙ্ক, এইচসিএল টেক-এর মতো সংস্থাগুলির শেয়ারের দর ৩ শতাংশ পর্যন্ত নিচে নেমে আছে। অন্যদিকে, এইচইউএল, আল্ট্রাটেক সিমেন্ট, মারুতি এবং এশিয়ান পেইন্টস লাভের মুখ দেখেছে। সোনার দামেও পতন ঘটেছে।

তবে শেয়ার বাজারে এই মন্দার পিছনে ভারতের বাজেট নয়, বিশেষজ্ঞদের মতে বিশ্বব্যাপী বাণিজ্য ক্ষেত্রে টালমাটাল পরিস্থিতি এবং চিনে করোনাভাইরাস-এর প্রাদুর্ভাব দায়ি। করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে ২০০-রও বেশি মানুষের মৃত্যু হয়েছে। এতে করে আন্তঃসীমান্ত বাণিজ্য এবং সরবরাহ চেইনগুলির ব্যবসার ব্যাপক ক্ষতি হয়েছে।