ভারতে অক্সফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয়-অ্যাস্ট্রাজেনেকা-র কোভিড ভ্য়াকসিন ব্যবহারের জন্য জরুরি ভিত্তিতে অনুমোদনের জন্য আবেদন করা হয়েছে। বুধবার এই বিষয়ে সিদ্ধান্ত নেওয়ার জন্য বৈঠকে বসেছিল, সেন্ট্রাল ড্রাগস স্ট্যান্ডার্ড কন্ট্রোল অর্গানাইজেশন-এর সাবজেক্ট এক্সপার্ট কমিটি। এদিনই এই কোভিড ভ্যাকসিনকে যুক্তরাজ্য সবুজ সঙ্কেত দিলেও, ভারত কোনও তাড়াহুড়ো করল না।

এদিন এই বিশেষজ্ঞ কমিটির আলোচনায় বিবেচ্য ছিল তিনটি জরুরী ব্যবহারের অনুমোদনের আবেদন। এখনও পর্যন্ত কোভিড-১৯ ভ্যাকসিনের জন্য এই আবেদন করেছে ভারত বায়োটেক, সিরাম ইনস্টিটিউট অব ইন্ডিয়া এবং ফাইজার সংস্থা। বৈঠকের পর কমিটি বলেছে, জরুরী ব্যবহারের জন্য অনুমোদনের জন্য অক্সফোর্ড-অ্যাস্ট্রাজেনেকার 'কোভিশিল্ড' ভ্যাকসিন এবং ভারত বায়োটেকের 'কোভাক্সিন'-এর বিষয়ে আরও তথ্যের প্রয়োজন। বিশেষজ্ঞ কমিটি দুই সংস্থার কাছ থেকেই আরও তথ্য চেয়ে পাঠিয়েছে। ফাইজার ইন্ডিয়া ইতিমধ্যেই তাদের কোভিড-১৯ ভ্যাকসিনের জন্য প্রয়োজনীয় তথ্য জমা দেওয়ার জন্য আরও কিছু সময় চেয়েছে। আগামী শুক্রবার, অর্থাৎ ২ জানুয়ারি এই বিসেষজ্ঞ কমিটি আবার কোভিড-১৯ ভ্যাকসিনগুলির জরুরি ভিত্তিতে ব্যবহারের জন্য অনুমোদন দেওয়ার বিষয়ে বৈঠকে বসবে।

ভারত বায়োটেক, সিরাম ইনস্টিটিউট অব ইন্ডিয়া এবং ফাইজার ইন্ডিয়া - এই তিন সংস্থাই চলতি মাসের গোড়ার দিকে তাদের তৈরি কোভিড-১৯ ভ্যাকসিনগুলির অনুমোদনের জন্য আবেদন করেছিল। গত ৯ ডিসেম্বর সেই আবেদনগুলি নিয়ে আলোচনার পরে, তিন সংস্থার কাছ থেকেই ভ্যাকসিনগুলির সুরক্ষা এবং কার্যকারিতা সংক্রান্ত তথ্য চেয়েছিল। এরমধ্যে বুধবার যুক্তরাজ্যে ব্যবহারের জন্য অক্সফোর্ডের টিকা অনুমোদন পাওয়ার পর সেটি এদিনই ভারতেও অনুমোদন পেয়ে যাবে বলে মনে করা হয়েছিল। কিন্তু কার্যক্ষেত্রে তা হল না।