বুধবার (৩০ ডিসেম্বর) ৩৪তম প্রগতি যোগাযোগ-এর সভাপতিত্ব করলেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী। এদগিনের সভায় পশ্চিমবঙ্গ ছাড়াও উত্তরপ্রদেশ, মধ্যপ্রদেশ, রাজস্থান, জম্মু ও কাশ্মীর, মহারাষ্ট্র, দিল্লি, হরিয়ানা, গুজরাট এবং দাদরা ও নগর হাভেলি সহ দশটি রাজ্য এবং কেন্দ্রশাসিত অঞ্চলের বিভিন্ন কেন্দ্রীয় সরকারি প্রকল্পের বিষয়ে আলোচনা করা হয়। প্রকল্পগুলি রেলপথ, সড়ক পরিবহন ও মহাসড়ক এবং আবাসন ও নগর বিষয়ক মন্ত্রকের মতো বিভিন্ন কেন্দ্রীয় সরকারি মন্ত্রকের আওতাধীন। সব মিলিয়ে ব্যয়ে হবে প্রায় এক লক্ষ কোটি টাকা।

এদিনের বৈঠকে আয়ুষ্মান ভারত এবং জল জীবনমিশন - এই দুই কেন্দ্রীয় সরকারি কর্মসূচির পর্যালোচনা করা হয়। প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী জানান, শীঘ্রই যাতে সমস্ত রাজ্য আয়ুষ্মান ভারত প্রকল্পের আওতায় আসে, তার জন্য একশোভাগ চেষ্টা করতে হবে। জল জীবন মিশন প্রকল্পকে সফল করার জন্য রাজ্য ও কেন্দ্রশাসিত অঞ্চলগুলিকে তিনি একটি রোডম্যাপ তৈরির নির্দেশও দিয়েছেন।

এছাড়াও, এদিনের বৈঠকে উপভোক্তা বিষয়ক মন্ত্রকের সম্পর্কে যেসব অভিযোগ এসেছে, সেগুলি নিয়েও আলোচনা করা হয়। জানা গিয়েছে, প্রধানমন্ত্রী এইসব অভিযোগের ব্যাপক ও দ্রুত সমাধান নিশ্চিত করার নির্দেশ দিয়েছেন। এই সমস্যাগুলির দ্রুত সমাধানের জন্য এবং সেইসঙ্গে এই সমস্ত প্রকল্পগুলি পর্যালোচনার কাজ নির্দিষ্ট সময়ে শেষ করার জন্য প্রধানমন্ত্রী, মুখ্য সচিবদের তারিখ নির্ধারণের নির্দেশও দিয়েছেন।