অবশেষে একমাসের উপর ধরে চলা কৃষক বিক্ষোভের সমাধান হওয়ার ইঙ্গিত মিলল। বুধবার বিক্ষোভরত কৃষক সংগঠনগুলির সঙ্গে ষষ্ঠ দফার আলোচনার পর কেন্দ্রীয় কৃষিমন্ত্রী নরেন্দ্র সিং তোমর জানিয়েছেন, চারটির মধ্যে দুটি বিষয়ে ঐক্যমত্য হয়েছে সরকার ও কৃষক পক্ষ। আগামী ৪ জানুয়ারি পরবর্তী বৈঠক অনুষ্ঠিত হবে বলে জানিয়েছেন কৃষিমন্ত্রী। তিনি আরও জানান, এদিনের আলোচনার পরিবেশ খুবই ভাল ছিল এবং ইতিবাচকভাবেই তা শেষ হয়েছে।

পঞ্চম দফার বৈঠকও ব্যর্থ হওয়ার বেশ কয়েকদিন পর এই আলোচনা অনুষ্ঠিত হল। এদিন, দুপুর ২টো নাগাদ শুরু হয়ে পরের চার ঘন্টা ধরে বৈঠক চলে। এদিনের বৈঠক যে ইতিবাচক হয়েছে, তার পরিচয় বৈঠকে অংশগ্রহণকারীদের শরীরি ভাষাতেই স্পষ্ট হয়ে গিয়েছে। কৃষক সংগঠনের নেতারা এখনও অবধি বিজ্ঞান ভবনে দেওয়া খাবার প্রত্যাখ্যান করেছেন। এদিন তাঁদের লঙ্গরে তৈরি খাবার খাওয়ার সময় কেন্দ্রীয় মন্ত্রী নরেন্দ্র সিং তোমর এবং পীযূষ গয়াল-ও তাঁদের সঙ্গে যোগ দেন। সংগঠনের নেতারাও সন্ধ্যায় চা বিরতির সময় সরকারের দেওয়া পানীয় গ্রহণ করেছেন।

বৈঠকে, কেন্দ্রীয় কৃষিমন্ত্রী বারবার করে কৃষকদের অনুরোধ প্রতিবাদ প্রত্যাহার করে নেওয়ার অনুরোধ জানান। তিনি বলেন, আলোচনা যখন শুরু হয়েছে, তখন প্রতিবাদের প্রয়োজন নেই। মহিলা, বয়স্ক এবং শিশুদের দিল্লির ঠান্ডায় কষ্ট পাচ্ছেন। তাঁদের ঘরে ফেরত পাঠানোর অনুরোধ করেন নরেন্দ্র সিং তোমর।

এদিন, কেন্দ্র নতুন কৃষি আইন পুনর্বিবেচনার জন্য একটি কমিটি গঠনের প্রস্তাব দিয়েছেন। এর আগেও এই প্রস্তাব দেওয়া হয়েছিল, তবে কৃষক সংগঠনগুলি তা মানেনি। সাফ জানিয়ে দিয়েছিল, তারা অবিলম্বে আইনগুলি প্রত্যাহার করার বাইরে কিছু মানবে না। এদিন-ও সর্বভারতীয় কিষাণ সভা-র পঞ্জাবের সভাপতি সেই অবস্থান থেকে সরে আসার কোনও ইঙ্গিত দেননি। অন্যদিকে, এমএসপি-র বিষয়ে আইনী নিশ্চয়তা চেয়েছেন কৃষকরা। সেই বিষয়ে কেন্দ্র এখনও সম্মতি দেয়নি। নরেন্দ্র সিং তোমর বলেছেন, এমএসপি এবং অন্যান্য বিষয়ের আইনগত দিক নিয়ে ৪ জানুয়ারি আলোচনা হবে।