ছেলেকে নিয়েই করোনা আক্রান্ত বলিউড সিঙ্গার কণিকা কাপুরের সঙ্গে পার্টি করেছিলেন রাজস্থানের প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী বসুন্ধরা রাজে। কণিকার দেহে পাওয়া গেছে ভয়ঙ্কর ছোঁয়াছে করোনার জীবানু। এই খবর সামনে আসার পরই বসুন্ধরা রাজে ও তাঁর ছেলে বিজেপি সাংসদ দুষ্মন্ত সিং  নাকি স্বেচ্ছায় গৃহবন্দি হয়ে রয়েছেন। ট্যুইট করে জানিয়েছেন বসুন্ধরা রাজে।  লক্ষ্ণৌতে কণিকার সঙ্গে পার্টিতে থাকার কথাও স্বীকার করে নিয়েছেন রাজে। তিনি আরও বলেছেন পুত্রবধূর পরিবারের সঙ্গে তাঁরা ডিনার পার্টিতে গিয়েছিলেন। যেখানে হাজির ছিলেন কণিকা। কিন্তু কণিকার খবর পাওয়া মাত্রই তিনি ও তাঁর ছেলে সেচ্ছায় কোয়ারেন্টিনায় চলে গেছেন বলেও জানিয়েছেন। 

 

 কিন্তু এই ঘটনায় রীতিমত উদ্বেগে তৃণমূলের রাজ্যসভার সাংসদ ডেরেক ওব্রায়ন। কারণ তাঁর অভিযোগ বর্তমানে সাংসদ দুষ্মন্ত সিং কোরায়েন্টিনায় রয়েছেন। কিন্তু তার আগেই দুষ্মন্ত সংসদে উপস্থিত ছিলেন। বসেছিলেন বিজেপির সাংসদের কাছে। ডেরেক আরও বলেছেন, সংসদে দুষ্মন্তের কিছুটা পিছনেই তিনি বসেন। প্রায় আড়াই ঘণ্টা তাঁরা বৈঠকও করেছেন।  দুষ্মন্তের  মাধ্যমে যে  করোনার জীবানু আরও ছড়িয়ে পড়বে না তা কী কেউ বলতে পারে। প্রশ্ন ডেরেকের। 
 
শুধু বসুন্ধধরা বা তাঁর ছেলে নন লক্ষ্মৌতে আকবর আহমেদের যে পার্টিতে কণিকা যোগ দিয়েছিলেন সেখানে ছিলেন উত্তর প্রদেশর স্বাস্থ্যমন্ত্রী জয়প্রতাপ সিং-ও। 
কণিকা জানিয়েছেন গত ১৫ই মার্চ লন্ডন থেকে দেশে ফিরেছেন। কিন্তু তিনি এড়িয়ে গিয়েছিলেন তাঁর বিদেশ সফর। সেই অবস্থায় পার্টি করেছেন। আর সেই পার্টিতে প্রথম সারিতেই দেখা গেছে বিজেপির প্রথম সারির নেতৃত্বকে। যানিয়ে রীতিমত চাপান উতোর শুরু হয়েছে। কারণ প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী বারবার দেশবাসীর কাছের আবেদন জানিয়েছেন করোনাভাইরাস মোকাবিলায়  সচেতনতা অবলম্বন করে চলতে। এড়িয়ে যেতে জমায়েত। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে রাখতে রবিবার জনতা কারফুরও ডাক দিয়েছেন তিনি। কিন্তু সেখানে তাঁর দলের প্রথম সারির সদস্যদের এই পার্টি করা নিয়ে প্রশ্ন তুলেছে বিরোধী রাজনৈতিক দলগুলি।