চিতাবাঘ সাধারণত মানুষের সামনে আসে না। আর যখন আসে, তাকে তখন অত্যন্ত বিপজ্জনক প্রাণী হিসাবেই বিবেচনা করা হয়। কিন্তু, বৃহস্পতিবার ইন্টারনেটে এমন একটি ভিডিও ভাইরাল হয়েছে, যা দেখে চিতাবাঘ সংক্রান্ত এই ধারণাগুলি একেবারে গুলিয়ে গিয়েছে। হিমাচল প্রদেশের কুলু উপত্যকায় তোলা ওই ভাইরাল ভিডিও একটি চিতাকে পর্যটকদের সঙ্গে এমন আচরণ করতে দেখা যাচ্ছে, যে দেখলে মনে হবে সে বুঝি বাড়ির পোষা বিড়াল!

জানা গিয়েছে, ভিডিওটি তোলা হয়েছে হিমাচল প্রদেশের কুলু-র তীর্থান উপত্যকায়। ভিডিও ক্লিপটিতে দেখা যাচ্ছে, রাস্তায় এক জায়গায় অন্তত ৩টি পর্যটক ভর্তি গাড়ি দাঁড়িয়ে। সেই গাড়িগুলি থেকে কয়েকজন পর্যটক রাস্তাতেও নেমে এসেছেন। আর তাদের একেবারে কাছ দিয়ে চলাফেরা করছে একটি লেপার্ড বা চিতা। উপস্থিত পর্যটকরা যখন তাকে মোবাইল ক্যামেরা বন্দি করতে ব্যস্ত, সেইসময় তাকে দু-এক-জনের গায়ে উঠে, সোয়েটারের হাতা বা জামা-কাপড়ের অন্য কোনও অংশ কামড়ে খেলতেও দেখা গিয়েছে। উপস্থিত পর্যটকদেরও সন্তর্পণে তাকে মাথায় হাত দিয়ে পোষ মানানোর চেষ্টা করতে দেখা যায়। এইরকম দুটি অ্যাঙ্গেল থেকে তোলা ভিডিও সোশ্যাল মিডিয়ায় ভাইরাল হয়েছে।

চিতাবাঘের এই ভাইরাল ক্লিপটি সোশ্যাল মিডিয়ায় পোস্ট করে আইএএস অফিসার সঞ্জীব গুপ্ত দাবি করেন, প্রাণীটি ক্ষুধার্ত ছিল এবং খাওয়ার জন্য এক মাংস চাইছিল। কিন্তু, তার চারপাশে থাকা পর্যটকরা তাকে খেতে না দিয়ে তার সঙ্গে খেলা করেছে, এবং ছবি তুলেছে। আইএফএস অফিসার সুধা রামেন, পারভীন কাসওয়ান, এবং সুশান্ত নন্দকেও তিনি ওই পোস্টে ট্যাগ করেছিলেন।

আইএফএস অফিসার পারভিন কাসওয়ান টুইট করে বলেন, তিনিও ওই চিতাবাঘটির আচরণে বিস্মিত। প্রাণীটি তাঁর মতে 'অদ্ভূত' আচরণ করেছে। তবে তাঁর মতে চিতাটি সম্ভবত গৃহপালিত। কারোর ব্যক্তিগত চিড়িয়াখানা থেকে পালিয়ে গিয়েছে। আরেক আইএফএস অফিসার রমেশ পান্ডে-ও কাসওয়ানের সঙ্গে সহমত হয়েছেন। তিনি বলেছেন, বন্য প্রাণীকে পোষ্য করে রাখার প্রবণতার ফলে এ জাতীয় অস্বাভাবিক বা বিস্ময়কর ঘটনা ঘটতে পারে। তবে তিনি ঘটনার আরও তদন্তের প্রয়োজন বলে জানিয়েছেন। যদি তাঁদের অনুমান সঠিক হয়, তাহলে ঘটনাটি অত্যন্ত 'দুর্ভাগ্যজনক ও উদ্বেগজনক' বলেও মন্তব্য করেছেন রমেশ পান্ডে।

ভিডিওটি ইন্টারনেটে যেমন একাংশের মধ্যে বিস্ময় সৃষ্টি করেছে, তেমনই বন্য পশু ও মানুষের এহেন মেলামেশার দৃশ্য দেখে উগ্বিগ্নও একাংশ। ভিডিওতে পর্যটকরা চিতাটির সঙ্গে যেরকম আচরণ করেছেন, তারও সমালোচনা হয়েছে। পর্যটকদের আচরণেরও সমালোচনা করেছেন আইএফএস অফিসার পারভিন কাসওয়ান-ও।