বৃহস্পতিবার, বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সঙ্গে ভার্চুয়াল দ্বিপাক্ষিক শীর্ষ বৈঠক করলেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী। শেখ হাসিনা ছিলেন ঢাকাতে, নরেন্দ্র মোদী দিল্লিতে। তবে নরেন্দ্র মোদীর পিছনে যে প্রেক্ষাপটটি ছিল, সেটি কোচবিহারের রাজবাড়ির। এদিন কোচবিহারের হলদিবাড়ি থেকে বাংলাদেশের চিলাহাটি পর্যন্ত রেল যোগাযোগের পুনর্সূচনা করলেন দুই রাষ্ট্রনেতা। তাই প্রধানমন্ত্রী মোদীর পিছনে কোচবিহারের রাজবাড়ির ছবি থাকা স্বাভাবিক। তবে রাজনৈতিক বিশ্লেষকরা কিন্তু মনে করছেন এটা মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে একটা জবাবও বটে।

তাৎপর্যপূর্ণভাবে, বুধবারই বাংলার মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় উত্তরবঙ্গ সফরে এসেছিলেন। তাঁর সফরসূচির মধ্যে ছিল জলপাইগুড়ি এবং কোচবিহার। ২০১৯ সালের নির্বাচনে উত্তরবঙ্গে খারাপ ফল করেছিল তৃণমূল কংগ্রেস। আলিপুরদুয়ার, জলপাইগুড়ি, দার্জিলিং, রায়গঞ্জ, বালুরঘাট ও মালদা উত্তর আসনে জিতেছিল বিজেপি। বুধবার উত্তরবঙ্গের সমাবেশ থেকে মমতা সেই ফলাফলের প্রসঙ্গ টেনে উত্তরবঙ্গবাসী জিজ্ঞাসা করেছিলেন, 'আমাদের কী দোষ?'

এদিন ভারত-বাংলাদেশ ভার্চুয়াল শীর্ষ সম্মেলনের জন্য কোচবিহার রাজবাড়ির ব্যাকগ্রাউন্ড বেছে নিয়ে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের সেই প্রশ্নেরই জবাব দিলেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী, এমনটাই মনে করছেন রাজনৈতিক বিশ্লেষকরা। জয়পুরের রাজপরিবারে বিবাহের আগে এই কোচবিহারের রাজবাড়িতেই বড় হয়েছিলেন মহারাণী গায়ত্রী দেবী। রাজা জগদ্বীপেন্দ্র নারায়ণ ভূপ বাহাদুর-এর মৃত্য়ুর পর কোচ রাজাদের সাম্রাজ্য ভারতের সঙ্গে মিশে গেলেও এই রাজবাড়ি বরাবরই জেলার মানুষের কাছে গর্বের বিষয়।

অথচ এদিন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর পিছনে ব্যাকড্রপ হিসাবে কোচ রাজদবাড়ির ছবি দেখে ভারতের অনেক জাগা থেকেই মানুষ কৌতূহলী হয়ে জিজ্ঞাসা করেছেন, এটা কোন রাজবাড়ি? কোচবিহার রাজবাড়ি শুনে পরের প্রশ্ন, কোচবিহার-টা কোথায়? বিহারে? এটা শুধু আজকের প্রশ্ন তা নয়, কোচবিহারের মানুষ দীর্ঘদিন ধরে ভারতের অন্যত্র গেলেই এই ধরণের প্রশ্নের উত্তর দিতে হয়।

আর এই প্রশ্নগুলোর মধ্যেই লুকিয়ে রয়েছে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের প্রশ্নের জবাব। কোচবিহার রাজবাড়ি একটা উদাহরণ মাত্র, যা সাফ দেখিয়ে দিচ্ছে দীর্ঘদিন ধরে কী পরিমাণ বঞ্চনার ও অবহেলার মধ্য দিয়ে যেতে হয়েছে উত্তরবঙ্গকে। রাজস্থানে একের পর এক কেল্লা, রাজবাড়ি দেখতে ভিড় করেন দেশ-বিদেশের পর্যটক। উত্তরবঙ্গে পাহাড়, জঙ্গল, রাজবাড়ি প্রাচীন মন্দির মিলিয়ে পর্যটনের উজ্জ্বল সম্ভাবনা রয়েছে। কিন্তু, রাজস্থানের মতো বিদেশি পর্যটক, কিংবা দেশের অন্যস্থান থেকেই পর্যটক টানতে পেরেছে কি? এদিনের আগে কোচবিহারটাই কোথায়, তাই তো জানতেন না অধিকাংশ মানুষ। একটা বৈঠকে কোচবিহার রাজবাড়ির ছবি তুলে ধরলেই য়ব বঞ্চনার অবসান হয়ে গেল তা কখনই নয়, কিন্তু, নরেন্দ্র মোদীর এই পদক্ষেপ মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের প্রশ্নের জবাব বটেই, এমনটাই বলছেন রাজনৈতিক বিশ্লেষকরা।