প্রতিবেশী দেশ বাংলাদেশের সঙ্গে ভার্চুয়ালে বৈঠক করলেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী। বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সঙ্গে বৈঠকে প্রতিবেশীই প্রথম নীতির কথা তুলে ধরলেন ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী। তিনি আরও বলেন, কোভিড পরিস্থিতির মধ্যেও একে অপরকে সাহায্য করেছে দুই দেশ। দুই দেশের সম্পর্ক নীবীড়। আগামী বছর ঢাকায় বঙ্গবন্ধু মুজিবর রহমানের জন্মদিনে প্রধানমন্ত্রী মোদীকে আমন্ত্রণ জানিয়েছেন শেখ হাসিনা।

এদিনের ভার্চুয়াল বৈঠকে বাপু-বঙ্গবন্ধ ভার্চয়াল প্রদর্শনীর উদ্বোধন করেন দুই দেশের প্রধানমন্ত্রী। এই ভার্চুয়াল প্রদর্শনী দুই দেশের যুবকদের উদ্বুদ্ধ করবে বলে জানিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী। অন্যদিকে, ১৯৬৫ সালের পর প্রথমবার রেলওয়ে লিঙ্ক করিডর চালু হল। এছাড়াও তথ্য প্রযুক্তি সহ অন্যান্য গুরুত্বপূর্ণ ক্ষেত্রে দুই দেশ একে অপরকে সাহায্য করবে বলে আশ্বাস দেন দুই দেশের প্রধানমন্ত্রী।

ভারত-বাংলাদেশ সংযোগরক্ষায় নতুন রেলওয়ে লিঙ্কের উদ্বোধন করেন তাঁরা। কোচবিহারের হলদিবাড়ি-চিলাহাটি রেল লিঙ্কের উদ্বোধন করেন উদ্বোধন করেন দুই দেশের প্রধানমন্ত্রী। অন্যদিকে, ১৯৭১ সালে ভারত-পাকিস্তান যুদ্ধের ৫০ বছর বার্ষিকীতে দিল্লির ন্য়াশনাল ওয়ার মিউজিয়ামে স্বর্ণ বিজয় মশালের জ্বালিয়েছিলেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী। ভারত-পাক যুদ্ধে বীর শহীদদের শ্রদ্ধা জানান প্রধানমন্ত্রী। এছাড়াও, ওই স্বর্ণ বিজয় মশাল গোটা দেশ ঘুরে বীর শহীদদের গ্রামে গ্রামে যাবে বলেও বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে জানান ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী।