তাঁর দুর্নীতি বিরোধী আন্দোলনের ধাক্কা সামলাতে পারেনি মনমোহন সিং-এর ইউপিএ-২ সরকার। নরেন্দ্র মোদী কি পারবেন? সংবাদ সংস্থা এএনআই-এর এক প্রতিবেদনে অনুযায়ী এবার দিল্লির কৃষক আন্দোলনে যোগ দিচ্ছেন গান্ধীবাদী সমাজ কর্মী আন্না হাজারে। সোমবার তিনি কেন্দ্রীয় কৃষিমন্ত্রী নরেন্দ্র সিং তোমর-কে একটি চিঠি দিয়ে বলেছেন, কেন্দ্র যদি কৃষকদের সমস্যার সমাধান না করে তবে তিনি অনশনে বসবেন।

মূলত পঞ্জাব ও হরিয়ানা থেকে আসা হাজার হাজার কৃষক, কেন্দ্রের নয়া কৃষি আইন ২০২০ বিরোধিতা করে দিল্লি সীমান্তে এক পক্ষকালেরও বেশি সময় ধরে বিক্ষোভ প্রদর্শন করছেন। এর মধ্যে ৪০টি কৃষকের সংগঠনের প্রতিনিধিদের সঙ্গে মোদী সরকারের পাঁচ দফা আলোচনা হয়ে গিয়েছে, কিন্তু কোনও সমাধান মেলেনি। একদিকে কৃষক সংগঠনগুলি সাফ জানিয়ে দিয়েছে, এই আইনগুলি বাতিল না করলে তারা আরও তীব্র আন্দোলনের পথে যাবে। অন্যদিকে সরকার-ও বলে দিয়েছে, আইন বাতিলের প্রশ্নই নেই। কৃষকদের আইনগুলি নিয়ে উদ্বেগ দূর করতে তারা সবসময় কথা বলতে রাজি।

ইতিমধ্যে এমএসপি সুরক্ষিত করার লিখিত প্রতিশ্রুতি-সহ কৃষি আইনের কিছু কিছু বিধান সংশোধন করার বিষয়ে কেন্দ্রীয় সরকার কৃষকদের কাছে একটি খসড়া প্রস্তাব পাঠিয়েছিল। তাও খারিজ করে দিয়েছেন কৃষক নেতারা। তারা বলেছে আইনগুলি বাতিল হলে তবেই তারা আলোচনায় বসবেন। এই অচলাবস্থা ক্রমে চাপ বাড়াচ্ছে মোদী সরকারের উপর। এই অবস্থায় কেন্দ্রীয় মন্ত্রীরা-সহ শাসক দলের বিভিন্ন নেতা নেত্রীরা কৃষকদের আন্দোলন বামপন্থী ও নকশালপন্থীরা দখল করে নিয়েছে, বলে অভিযোগ করেছেন। এই অবস্থায় আন্না হাজারে যদি কৃষকদের দাবি আদায়ের জন্য আন্দোলনে নামেন, তাহলে সরকারের উপর চাপ আরও বাড়বে, তা বলাই বাহুল্য।