আজ শুরু হচ্ছে সংসদের শীতকালীন অধিবেশন। তবে, এবারের অধিবেশন কতটা শান্তভাবে সম্পন্ন হবে তা নিয়ে সংশয় থাকছে। কারণ, অর্থনীতির ধীরগতি এবং বেকারত্বের হার বৃদ্ধি বিরোধীদের হাতে বেশকিছু ইস্যু তুলে দিয়েছে। এর সঙ্গে রয়েছে কাশ্মীরের নেতা-নেত্রীদের গৃহবন্দি করে রাখার বিষয়টিও। হইহট্টগোলে যাতে অধিবেশনের সময় নষ্ট না হয় তার জন্য রবিবার নয়াদিল্লিতে সর্বদলীয় বৈঠক হয়। যেখানে উপস্থিত ছিলেন খোদ প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীও। প্রথা মেনেই এই সর্বদলীয় বৈঠকের ডাক দিয়েছিলেন লোকসভার অধ্যক্ষ ওম বিড়লা। 

এবারের শীতকালীন অধিবেশনে ৪৩টি বিল-কে আনা হচ্ছে। এরমধ্যে রয়েছে নাগরিকত্ব বিল। এই বিলটি মোদী সরকারের কাছে খুবই গুরুত্বপূর্ণ। কারণ, নাগরিকত্ব বিল দিয়ে সরকার অমুসলিম জনজাতির কাছে জনপ্রিয়তা পাওয়ার চেষ্টা করছে বলেই অভিযোগ বিরোধীদের। কারণ, এই বিলটি-র মধ্যে দিয়ে বিদেশিরা কিছু শর্তপূরণের মধ্যে দিয়ে ভারতীয় নাগরিকত্ব পাওয়ার অধিকারী হবেন। 

১৩ ডিসেম্বর শেষ হবে সংদের শীতকালীন অধিবেশন। মোট ২০টি সিটিং হওয়ার কথা। এর আগের অধিবেশনে সংসদ সাক্ষী থেকেছে নজিরবিহীন সব ঘটনার। প্রায় মধ্যরাত পর্যন্ত চলেছে অধিবেশন। এবারও তেমনভাবেই অধিবেশনের সময়সীমা বাড়িয়ে নিয়ে প্রতীক্ষায় থাকা সমস্ত বিল লোকসভায় পাশ করানো হতে পারে বলে মনে করা হচ্ছে।