প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী বলেছিলেন শিশুদের বর্তমান সুরক্ষা ও তাদের ভবিষ্যতের কথা চিন্তাভাবনা করেই সমস্ত সিদ্ধান্ত গ্রহণ করতে হবে। সেই সঙ্গে করোনাকালে পরীক্ষা গ্রহণ নিয়ে তিনি রাজ্যগুলির পরামর্শ ও সিদ্ধান্ত জানতে চেয়েছে সংশ্লিষ্ট রাজ্যগুলির সঙ্গে একটি বৈঠকও করতে বলেছিলেন। সমস্ত দিক খতিয়ে দেখেই সিদ্ধান্ত নেওয়ার কথা বলেছিলেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী। 

গত ২৩ মে অর্থাৎ রবিবার কেন্দ্রীয় প্রতিরক্ষা মন্ত্রী রাজনাথ সিং-এর সভাপতিত্বে একটি উচ্চ পর্যায়ের বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়েছিল। কেন্দ্রী. শিক্ষামন্ত্রী রমেশ পোখরিয়াল কেন্দ্রীয় মন্ত্রী স্মৃতি ইরানি সহ রাজ্যের শিক্ষামন্ত্রীরা সেই ভার্চুয়াল বৈঠকে হাজির ছিলেন। অংশ নিয়েছিলেন কেন্দ্র ও রাজ্যের উচ্চ পদস্থ আধিকারিকরাও। সেই বৈঠকে আলোচনার মূল বিষয় ছিল কী ভাবে করোনাভাইরাসের দ্বিতীয় তরঙ্গের মধ্যে ২০২১ সালের  সিবিএসই -র দ্বাদশ শ্রেণির বোর্ড পরীক্ষা গ্রহণ করা যায়। একই সঙ্গে অন্যান্য বোর্ড পরীক্ষাগুলি নিয়েও আলোচনা হয়েছিল। 

অধিকাংশ রাজ্যই জানিয়েছে ১৯টি মূল বিষয়ের বোর্ড পরীক্ষা গ্রহণ করা জরুরি। কয়েকটি রাজ্য আবার বোর্ড পরীক্ষাগুলি অন্যকোনও পদ্ধতিতে নেওয়া যায় কিনা সেদিকটিও খতিয়ে দেখার বিষয় মত প্রকাশ করেছে। তিন ঘণ্টার পরিবর্তে ৯০ মিনিটে পরীক্ষা নেওয়ার বিষয়টি নিয়েও আলোচনা  হয়েছে। ২০২১ সালে সিবিএসই দ্বাদশ শ্রেণির বোর্ড পরীক্ষা হবেই -- এটা প্রায় নিশ্চিত করে বলা যায়। 

পরীক্ষার বিষয়টি নিয়ে আগামিকাল অর্থাৎ ২৫ মে রাজ্যগুলি তাদের সুচিন্তিত মতামত জানাবে। মাধ্যমিক ও দ্বাদশ শ্রেণির পরীক্ষা নিয়ে লিখিতভাবে রাজ্যগুলি নিজেদের মতামত জানাবে। করোনা পরিস্থিতির মধ্যে অভ্যন্তরীন কাউন্সিলিং-এর মাধ্যমেই মাধ্যমিক পরীক্ষার্থীদের মান নির্ধারণ করা বিষয়ে  এখনও পর্যন্ত সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। কিন্তু দ্বাদশ শ্রেণির পরীক্ষা নেওয়া অত্যন্ত জরুরি বলেও দাবি করেছে কেন্দ্রীয় মন্ত্রীরা। তাই দ্বাদশ শ্রেণির পরীক্ষার বিষয়ে খুব তাড়াতাড়ি সিদ্ধান্ত গ্রহণ করা হবে। গতকালই কেন্দ্রীয় শিক্ষামন্ত্রী জানিয়েছিলেন পরীক্ষার্থীদের তৈরি হওয়ার জন্য সময় দেওয়া হবে। আগামী পয়লা জুন ঘোষণা করা হতে পারে পরীক্ষার পদ্ধতি ও সূচি।