আগামী সপ্তাহের মাঝামাঝি কিছুটা হলেও স্বস্তি পেতে পারেন ইয়েস ব্যাঙ্কের গ্রাহকরা। কারণ বাড়ানো হতে পারে ইয়েস ব্যাঙ্কের টাকা তোলার উর্ধ্বসীমা। একই সঙ্গে ইয়েস ব্যাঙ্ক পুর্নগঠন প্রকল্পের বিজ্ঞপ্তি জারি করেছে কেন্দ্রীয় সরকার। ভরাডুবির পর রিজার্ভব্যাঙ্ক অব ইন্ডিয়া ইয়েস ব্যাঙ্কের গ্রাহকদের জন্য টাকা তোলার উর্ধ্বসীমা বেঁধে দিয়েছিল। যার পরিমাণ মাত্র ৫০,০০০ টাকা। আগামী বুধবার থেকে সেই নিষাধাজ্ঞা নমনীয় করতে পারে সরকার। তাই টাকা তোলারা উর্ধ্বসীমা বাড়ানো হতে পারে বলেই মনে করছেন সংশ্লিষ্ট ব্যক্তিরা। পাশাপাশি ইয়েস ব্যাঙ্কের পুর্নগঠনের বিষয়েও বেশ কিছু সদর্থক পদক্ষেপ নেওয়া হয়েছে। ইয়েস ব্যাঙ্কে লগ্নি করতে পারে দেশের চার প্রথম সারির বেসরকারি ব্যাঙ্কও। তবে আগে থেকেই ইয়েস ব্যাঙ্কে ভারতীয় স্টেট ব্যাঙ্কের লগ্নির বিষয় সিন্ধান্ত হয়ে গিয়েছে। এসবিআই ৪৯ শতাংশ শেয়ার কিনে নেবে। পাশাপাশি কেন্দ্রীয় অর্থমন্ত্রী নির্মলা সীমারমন জানিয়েছেন আগামী ৩ বছরের মধ্যে এসবিআই তাঁর অংশীদারিত্ব ২৬ শতাংশের নিচে নামাতে পারবে না। 

গত সপ্তাহেই ইয়েস ব্যাঙ্কের ভরাডুবির খবর সামনে আসে। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে মাঠে নামে কেন্দ্রীয় সরকার ও আরবিআই। গ্রাহকদের টাকা তোলার ওপর নিষেধাজ্ঞা জারি করা হয়। আরবিআই  আগামী তেশরা এপ্রিল পর্যন্ত টাকা তোলার উর্ধ্বসীমা ৫০ হাজারে বেঁধে দিয়েছিল। আরবিআই-এর নিষেধাজ্ঞায় রীতিমত সংকটে পড়েছিলেন ইয়েস ব্যাঙ্কে কয়েক হাজার গ্রাহক। পাশাপাশি আরবিআই জানিয়েছিল ইয়েস ব্যাঙ্ক কোনও ঋণ দিতেও পারবে না। 

আরও পড়ুনঃ করোনাভাইরাস LIVE, ব্রিটেনে করোনা নিয়ে জন্মালো শিশু, মহারাষ্ট্রে সন্ধান মিলল আরও ২ আক্রান্তের

গতকালই কেন্দ্রীয় মন্ত্রিসভা ইয়েস ব্যাঙ্ক উদ্ধার প্রকল্পে সীলমহর দিয়েছিল। কেন্দ্রীয় অর্থমন্ত্রী নির্মলা সীতারম জানিয়েছিলেন ইয়েস ব্যাঙ্কে এসবিআই ৪৯ শতাংশ লগ্নি করবে। পাশাপাশি বেসরকারি ব্যাঙ্ক গুলির সঙ্গেও কথাবার্তা চলছে। এই পরিস্থিতিতে এইচডিএফসি ও আইসিআইসিআই ব্যাঙ্কা এক হাজার কোটি টাকা করে ইয়েস ব্যাঙ্কে লগ্নির সিন্ধান্তের কথা ঘোষণা করেন। অ্যাক্সিস ব্যাঙ্ক ৬০০ কোটি ও কোডার্ক মহিন্দ্রা ৫০০ কোটি টাকা ঢালবে বলেও ঘোষণা করেছে। কেন্দ্রীয় মন্ত্রিসভার সিদ্ধান্ত অনুযায়ী বেসরকারি সংস্থা গুলিকে তাদের পুঁজির ৭৫ শতাংশ ইয়েস ব্যাঙ্কে রাখতেই হবে।

আরও পড়ুনঃ মহারাষ্ট্রে আরও ২ করোনা আক্রান্তের খোঁজ, সাহায্যে চেয়ে নেতানিয়াহুর আবেদন মোদীর কাছে

ইয়েস ব্যাঙ্কের প্রাক্তন কর্ণধার রানা কাপুরকে ইতিমধ্যেই গ্রেফতার করা হয়েছে। দফায় দফায় জিজ্ঞাসাবাদ করা হয়েছে তাঁর স্ত্রী ও মেয়েদের। ইডির পাশাপাশি তদন্তে নেমেছে সিবিআই। রানা  কাপুরের বিরুদ্ধে ঘুষ নেওয়ার অভিযোগ তুলে বেশ কয়েকটি মামলাও দায়ের করেছে সিবিআই।