যাঁরা প্রশ্ন করেন, মা হওয়া কি মুখের কথা, তাঁরা একবার ব্রিটেনে গিয়ে সু ব়্য়াডফোর্ডের সঙ্গে দেখা করে আসতে পারেন। ল্য়াঙ্কশায়ারের এই মহিলার ওপর মা ষষ্ঠীর কৃপা বর্ষিত হয় প্রতি দু-বছর অন্তর-অন্তর, একেবারে নিয়ম করে!

সেই শুরু হয়েছিল ১৩ বছর বয়সে। তারপর থেকে তিনি মা হয়েই চলেছেন। ইতিমধ্য়েই ২১ বার মা হয়েছেন। এবার ২২বারের পালা। এই দ্বাবিংশতমবার মা হওয়ার আনন্দে সম্প্রতি তিনি তাঁর বেবি বাম্পের ছবি ছেড়ে দিয়েছেন সোজা ইউটিউবে। আর সেই ইউটিউব ক্লিপ গ্রোগ্রাসে গিলেছেন নেটিজেনরা।

ইউটিউব ভিডিয়োতে দেখা যাচ্ছে শ্রীমতি ব়্যাডফোর্ড একটি গাড়িতে বসে আছেন। চালকের আসনে বসে তাঁর ৪৮ বছরের স্বামী নোয়েল। স্বামীর পাশে বলেই মহিলা বলছেন, "আপনারা জানেন, আমাদের বাচ্চা হতে চলেছে।  আমি এখন ১৫ সপ্তাহের সন্তানসম্ভবা। আগামী এপ্রিলে  আমার বাচ্চা জন্মাবে।"

এর আগে ২১বার মা হয়েছেন শ্রীমতি ব়্য়াডফোর্ড। এই নিয়ে ২২ বার। ১১ বার মেয়ে হয়েছে আর ১০ বার ছেলে।  তিনি তাঁর ভিডিয়ো বার্তায় বলছেন, "এবার চাইছি একটা ছেলে। যাতে ছেলে মেয়ের অনুপাত সমান থাকে।"

কিন্তু ওই দম্পতি যে কী করে সামাল দেন এতজন ছেলেমেয়েকে, তা এখনও একপ্রকার রহস্য়ই। কারণ, দুজনের ছোটখাট একটা বেকারির ব্য়বসা রয়েছে।  বাচ্চা জন্মালে ১৭০ পাউন্ড বড়জোর দাবি করতে পারবেন সরকারের কাছ থেকে। তাহলে?

কেউ কেউ বলছেন, একের-পর-এক বাচ্চা জন্ম দেওয়া ওই দম্পতির নেশায় দাঁড়িয়ে গিয়েছে। নইলে সেই ১৩ বছর বয়স থেকে শুরু করে ৪৪ বছর বয়স অবধি অনবরত বাচ্চার জন্ম দিয়ে গিয়ে শুধু যে  আর্থিক সঙ্কটই তৈরি করছেন এমনটা নয়, মহিলার শরীরও ভেঙে যাচ্ছে এর ফলে। কিন্তু তবুও, শতপুত্র না হোক, শতসন্তানের দিকে এগিয়ে চলেছেন শ্রীমতি ব়্য়াডফোর্ড। লোকের কথায় কান না-দিয়ে  মহিলা বলছেন, "২০১৮-র পর আর তো আমাদের কোনও সন্তান হয়নি, তাই আবার...।"

সত্য়ি, মা ষষ্ঠীর কী কৃপাই না বর্ষিত হচ্ছে ল্য়াঙ্কশায়ার ওই বেকারি -দম্পতির ঘরে!