আফগানিস্তানের রাজধানী কাবুলে সোমবার রাতে ঘটে গিয়েছে এক ভয়াবহ বিস্ফোরণের ঘটনা। যার জেরে প্রাণ হারিয়েছেন পাঁচজন এবং আহত হয়েছেন কমপক্ষে ৫০ জন। আহতরা কাবুলের হাসপাতালে চিকিৎসাধীন। প্রসঙ্গত এই হামলার মাত্র কিছু সময় আগে মার্কিন দূত আফগান সরকারের সঙ্গে চুক্তির বিষয়টি উল্লেখ করে ঘোষণা করেন আগামী পাঁচ মাসের মধ্যে প্রায় ৫০০০ মার্কিন সৈন্যকে আফগানিস্তান থেকে সরিয়ে নেওয়া হবে। আর তার পরই ঘটে এই বিস্ফোরণের ঘটনা। এই হামলার দায় স্বীকার করে নিয়েছে  তালিবানরা। 

আভ্যন্তরীণ মন্ত্রকের মুখপাত্র নসরত রাহমি জানিয়েছেন, অন্ততপক্ষে পাঁচজনের প্রাণ গিয়েছে, সেইসঙ্গে প্রায় পঞ্চাশজন গুরুতরভাবে জখম হয়েছে। তবে এই সংখ্যাটা আরও বাড়তে পারে বলে আশঙ্কা করা হচ্ছে। কারণ অধিকাংশ বাড়িঘর ধ্বংস হয়ে গিয়েছে বলে খবর। তিনি আরও জানান যে, এই বিস্ফোরণের লক্ষ্য ছিল গ্রিন ভিলেজ কমপাউন্ড, যেখানে বেশ কয়েকটি আন্তর্জাতিক সংস্থা এবং গেস্টহাউজ রয়েছে। বিস্ফোরণের সময়ে সেখানকার ও তার সংলগ্ন এলাকা কালো ধোঁয়ায় ঢেকে গিয়েছিল বলে খবর। 

ইয়েমেনে সৌদির এয়ার স্ট্রাইক, নিহত অন্তত ১০০, গুরুতর আহত ৪০

প্রসঙ্গত বিস্ফোরণের এলাকা গ্রিন ভিলেজে সবসময় বিদেশিদের আসা-যাওয়া লেগেই থাকে। মনে করা হচ্ছে আর সেই কারণেই ওই অঞ্চলকেই হামলার জন্য বেছে নিয়েছিল তালিবানরা। তবে এমন গুরুত্বপূর্ণ একটি জায়গা যেখানে সর্বদা নিরাপত্তারক্ষীরা কড়া পাহাড়ায় নিযুক্ত, তা সত্তেও কীভাবে এমন হামলা হল সেই প্রশ্নই ঘুরে ফিরে আসছে। প্রশাসনিক সূত্রে খবর, তালিবানরা একটি গাড়ি হামলার মাধ্যমে বিস্ফোরক ঘটিয়েছে বলে জানি গিয়েছে। তালিবান জঙ্গিরা একটি বিস্ফোরক বোঝাই গাড়ি গ্রিন ভিলেজ এলাকায় রেখে এসেছিল। প্রত্যক্ষদর্শীরা এদিনের ঘটনাকে ভয়াবহ বলে আখ্যা দেন। 

প্রসঙ্গত জানুয়ারি মাসেও ঠিক এই একই কায়দায় একটি আত্মঘাতী গাড়ি বোমা হামলাযর ঘটনা ঘটেছিল, যেখানে কমপক্ষে চার জন নিহত হন এবং অসংখ্য মানুষ আহত হয়েছিলেন। প্রসঙ্গত সেবার এই বিস্ফোরণটি ঘটেছিল যখন মার্কিন দূত, জালমায়ে খলিলজাদ আমেরিকার দীর্ঘতম যুদ্ধের অবসানের বিষয়ে তালেবানদের সঙ্গে তার আলোচনার বিষয়ে আফগান সরকারকে জানাতে রাজধানী সফরে গিয়েছিল।