লম্বা সাদা গাউন এবং ওড়নায় উজ্জ্বল এক নববধূ। বিয়ের ফটোশুট হচ্ছে। খুব স্বাভাবিকভাবেই মুখ জোড়া হাসি ছিল নববধূর। কিন্তু মুহূর্তেই এই আনন্দোচ্ছ্বলতা বদলে যায় আর্তনাদ ও আতঙ্কে। সোশ্য়াল মিডিয়ায় এখন এই বিয়ের ফটোশুট-এর ভিডিও ভাইরাল।

গত মঙ্গলবার লেবাননের রাজধানীতে বেইরুটে একটি ভয়াবহ বিস্ফোরণ ঘটে। এই ঘটনায় অন্তত ১৩৫ জন নিহত এবং ৫,০০০ এরও বেশি মানুষ আহত হয়েছেন। বিস্ফোরণের অভিঘাতে অর্ধেকের বেশি শহর ধ্বংসস্তূপে পরিণত হয়েছে। বিস্ফোরণের সময়ের সেই  নাটকীয় মুহূর্তই ধরা পড়ে গিয়েছে এই ভাইরাল হওয়া ফটোশুটের ভিডিওয়।

জানা গিয়েছে ভিডিও-তে যে নববধূকে দেখা যাচ্ছে তিনি হলেন ২৯ বছর বয়সী লেবানিজ ডাক্তার ইসরা সেবলানি। বেইরুটেই বড় হলেও এখন কাজের সূত্রে থাকেন মার্কিন মুলুকে। বিয়ের জন্যই তিন সপ্তাহ আগে তিনি নিজের শহরে ফিরেছিলেন। বিয়ের পর ওই দিন মধ্য বেইরুটের সইফি স্কোয়ার-এ ফটোশুটে ব্যস্ত ছিলেন তিনি। ওই বিস্ফোরণের পর স্বাভাবিকভাবেই আর হয়নি ফটোশুট। বরং কাছাকাছি থাকা আহতদের শুশ্রুসায় ব্যস্ত হয়ে পড়েছিলেন সেবলানি।

তাঁর স্বামী ৩৪ বছরের আহমদ সুবাইহ বেইরুটেরই এক ব্যবসায়ী। ঘটনার পর এক সপ্তাহ পেরিয়ে গেলেও তাঁরা এখনও ওই ঘটনার ধাক্কা সামলাতে পারেননি। সেলবানি জানিয়েছেন, বিয়ে নিয়ে সব মহিলার মতোই তিনিও খুব আনন্দে ছিলেন। প্রায় সপ্তাহ দু'এক ধরে এর জন্য প্রস্তুতি নিয়েছেন তাঁরা। চেয়েছিলেন তাঁদের বিয়েটা স্মরণীয় হয়ে থাক। কিন্তু, তা যে এই ভয়াবহ কারণে মনে থেকে যাবে তা স্বামী-স্ত্রী কেউই ভাবেননি।

বিস্ফোরণের পর কিছুক্ষণ তাঁর মাথাই কাজ করছিল না বলে জানিয়েছেন সেবলানি। মনে এসেছিল মৃত্যুভয়। সেলবানি জানিয়েছেন বিস্ফোরণের পরর তিনি ও তাঁর স্বামী হাঁটতে শুরু করেছিলেন। চারপাশে শুধু ধ্বংসের চিহ্ন। একটু পরে নিজেদের সামলান তিনি এবং তার স্বামী। বিয়ের অন্যান্য উদযাপনের অনুষ্ঠানও করেছেন। কিন্তু, সবটাই প্রায় যন্ত্রের মতো।

গত বুধবার মালপত্র এবং পাসপোর্ট নিতে হোটেলে ফিরেছিলেন সুবাইহ। তিনি জানিয়েছেন তাঁদের হোটেলটিও পুরো ভেঙেতুরে গিয়েছিল। ঘরের অবস্থা তাঁদের ভাষায় 'অবিশ্বাস্য' ছিল। এই অবস্থা সুবাইহ এখন স্ত্রীর সঙ্গে আমেরিকা চলে য়েতে চান। মার্কিন ভিসা পাওয়ার অপেক্ষায় রয়েছেন। সেবলানি জানিয়েছেন তিনি লেবাননকে ভালোবাসেন। কিন্তু গত মঙ্গলবারের বিস্ফোরণের পর সেখানে বাস করার আর কোনও উপায় নেই বলেই মনে করছেন তিনি। তবে তিনি নিজে, তাঁর স্বামী, এবং ওই ফটোগ্রাফার যেভাবে বেঁচে গিয়েছেন তার জন্য ঈশ্বরকেই ধন্যবাদ জানিয়েছেন তিনি।

অবশ্য ওই একই দিনে আরও এক নবদম্পতির বিবাহের ভিডিও তোলা হচ্ছিল, যেখানেও ধরা পড়েছে বিস্ফোরণের অভিঘাত। এই ভিডিও দম্পতিকে চিহ্নিত করা যায়নি। তবে এটিও সইফি স্কোয়ার-এরই এক রেস্তোরাঁর বাইরে তোলা। নবদম্পতি একসঙ্গে দাঁড়িয়ে ছবি তুলছিলেন। হঠাতই নববধূর চোখের আতঙ্ক দেখা যায়। আর তারপরই বিস্ফোরণের শক্তিশালী শক্তিশালী শকওয়বের ধাক্কায় ভেঙে চুরমার হয়ে যায় তাদের পিছনে থাকা রেস্তোরাঁর জানলাগুলি।