বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার পক্ষ থেকে ছোট ছোট বাচ্চাদের মধ্যে সমকামিতা-কে প্রশ্রয় দেওয়া হয়। তাদের উত্সাহ দেওয়া হয়  এবং হস্তমৈথুন করতে। রাষ্ট্রসংঘের স্বাস্থ্য সংক্রান্ত সংস্থার বিরুদ্ধে এমনই ভয়ঙ্কর অভিযোগ করলেন ব্রাজিলের প্রেসিডেন্ট জাইর বোলসোনারো। করোনাভাইরাস মহামারির একেবারে শুরু থেকে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থআ বা হু-এর সঙ্গে তাঁক সংঘাত বেঁধেছে। সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখা থেকে শুরু করে হু-এর যে কোনও পরামর্শকেই তিনি এখনও পর্যন্ত অগ্রাহ্য করেছেন অথবা সরাসরি বিরোধিতা করেছেন।

বুধবার এই চরম ডানপন্থী নেতা সোশ্যাল মিডিয়ায় এই পোস্টে হু-এর বিরুদ্ধে শিশুদের সমকামিতা ও হস্তমৈথুনে উৎসাহ দেওয়ার অভিযোহ করেছিলেন। পরে আবার কোনও এক অজ্ঞাত কারণে তা মুছেও দেন। তিনি ওই পোস্টে লিখেছিলেন, 'এই হল বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা, কিছু লোক চায় যাদের করোনাভাইরাস সম্পর্কিত পরামর্শ আমি অনুসরণ করি। আমাদের কি তাদের শিক্ষানীতি-ও অনুসরণ করা উচিত?'

এরপরই তিনি দাবি করেন, হু-এর শিক্ষানীতি নাকি বলে, শূন্য থেকে চার বছর বয়সী শিশুদের দেহ স্পর্শ করে বা , হস্তমৈথুনের মাধ্যমে সন্তুষ্টি এবং আনন্দের শিক্ষা দেওয়ার কথা। একইভাবে চার থেকে ছয় বছর বয়সী শিশুদের জন্য, একটি ইতিবাচক লিঙ্গ পরিচয়, শৈশবে হস্তমৈথুন, সমকামী সম্পর্ক। নয় থেকে বারো বছর বয়সীদের প্রথম যৌন অভিজ্ঞতার শিক্ষা দেওয়া হবে? তিনি প্রশ্ন করেন।

এই তথ্যগুলির কোথা থেকে তিনি পেয়েছেন তা অবশ্য জানাননি বোলসোনারো। তাঁর এক পরামর্শদাতা আর্থার ওয়েইনট্রাব-এ এর আগে এই বিষয়ে একটি টুইট করেছিলেন। তিনিও দাবি করেছিলেন 'ডাব্লুএইচও-র নির্দেশিকা অনুযায়ী শূন্য থেকে চার বছর বয়সী শিশুদের 'হস্তমৈথুন,' 'আনন্দ এবং উপভোগ,' 'নিজের শরীরের স্পর্শ' এবং 'লিঙ্গ আদর্শ' সম্পর্কে শিক্ষা দেওয়া উচিত। এটা কি ঠিক?'

জানা গিয়েছে জার্মানির ফেডারেল সেন্টার ফর হেলথ এডুকেশন এবং বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার ইউরোপিয় অফিস থেকে ২০১৯ সালে 'ইউরোপে যৌন শিক্ষার স্ট্যান্ডার্ডস' নামে একটি গাইড প্রকাশ করা হয়েছিল। সেখানে মূল বিষয় না হলেও ছোট করে বলা হয়েছিল, শিশু বয়সেই মমানুষ তার দেহের বিভিন্ন অঙ্গপ্রত্যঙ্গ আবিষ্কার করে। নিজেকে স্পর্শ করা, যৌনতা সম্পর্কে কৌতূহল শিশুদের স্বাভাবিক আচরণ বলে মেনে নেওয়ার পরামর্শ দেওয়া হয়েছিল বাবা-মা এবং শিক্ষকদের। কিন্তু নিজেকে স্পর্শ করা বা হস্তমৈথুন করার বিষয়ে শিশুদের উৎসাহ দেওয়া হয়নি কোথাও, যেমনটা বোলসোনারো দাবি করেছেন।

করোনভাইরাস মহামারী শুরু হওয়ার পর থেকে নিয়মিতভাবে নরেন্দ্র মোদীর ব্রাজিলিয় বন্ধু হু-এর সঙ্গে মতবিরোধে জড়িয়েছেন। সামাজিক দূরত্বের ব্যবস্থা অপ্রয়োজনীয়ভাবে অর্থনীতিকে নষ্ট করছে বলে দাবি করেছিলেন তিনি। করোনাভাইরাস মহামারিকে তিনি মরসুমি জ্বরের থেকে বেশি কিছু ভাবতে নারাজ। এমনকী তাঁর স্বাস্থ্যমন্ত্রী লুইজ হেনরিক ম্যান্ডেটা এই সংকটের বিজ্ঞান সম্মত সমাধান করতে চাওয়ায় তাঁকে বরখাস্ত করেছেন বোলসোনারো।