কাতারের রাজধানী  দোহাতে বসেছে  ওয়ার্ল্ড চ্যাম্পিয়ানশিপের আসর। আর তাতেই ঘটল এক অভিনব ঘটনা। গরমে কাহিল প্রতিযোগিদের জন্য  রাতে আয়োজন করা হল ম্যারাথনের।

ওয়ার্ল্ড চ্যাম্পিয়নশিপের অধিকংশ খেলাই হচ্ছে শীতাতপ নিয়ন্ত্রিত স্টেডিয়ামে। কিন্তু ২৬.২ মাইলের ম্যারাথনের আয়োজন সেই স্টেডিয়ামে করা সম্ভব নয়। এদিকে দিনের বেলায় তাপমাত্রার পারদ পৌঁছে যাচ্ছে প্রায় ৪০ ডিগ্রি সেলসিয়াসের আশেপাশে। সঙ্গে রয়েছে আর্দ্রতা। এই অবস্থায় দিনের বেলায় ম্যারাথনের ময়দানে নামতে রাজি ছিলেন না প্রতিযোগিরা। তাই শেষপর্যন্ত রাতেই আয়োজন করতে হল ম্যারাথনের। 

ম্যারাথনে অংশ নিয়েছিলেন ৬৮ জন প্রতিযোগি। রাতে ম্যারাথন  হলেও আর্দ্রতা জনিত অস্বস্তির কারণে শেষপর্যন্ত ২৮ জন প্রতিযোগি দৌড় শেষ করতে পারেননি। তবে সবাইকে হারিয়ে সোনা জেতেন কেনিয়ার চিপানগেটিচ। 

মধ্যপ্রাচ্যে কোনও দেশে এই প্রথম বসেছে  বিশ্ব চ্যাম্পিয়নশিপের আসর। যাতে অংশ নিয়েছেন প্রায় ২ হাজার ক্রীড়াবিদ। এদের মধ্যে অধিকাংশ ক্রীড়াবিদই গরমের কারণে সন্ধ্যায় অনুশীলনে নামছেন। 

বিশ্বে ক্রমেই বেড়ে চলেছে উষ্ণায়ণের সমস্যা। এবার গ্রীষ্মে গোটা উইরোপ জুড়ে দেখা দিয়েছিল তারপ্রবাহ। গরমের হত থেকে রেহাই মেলেনি আমেরিকা মহাদেশেরও। পরিবেশ দূষণের ফলে যেভাবে বেড়ে চলেছে পৃথিবীর তাপমাত্রা তাতে আতঙ্কিত বিশ্বের তাবড় তাবড় নেতারাও। রাষ্ট্রসংঘের হস্তক্ষেপেও মিলছে  না সুরাহা। ক্রমেই বেড়ে চলেছে বায়ুদূষণের মাত্রা। সেই উষ্ণায়ণেরই শিকার  কাতারের রাজধানীও।