দেশের মানুষের নিরাপত্তার খাতিরে রাতারাতি ৫৯টি চিনা অ্যাপ ব্লক করেদিয়েছে কেন্দ্রীয় সরকার। দেশের মানুষের ব্যক্তিগত তথ্য পাচার হচ্ছিল বলে আগেই সতর্ক করেছিল গোয়েন্দা সংস্থা। তারপরই কড়া পদক্ষেপ গ্রহণ করা হয়েছে। আর ভারতের এই পদক্ষেপে রীতিমত ক্ষুদ্ধ জিংপিং প্রশাসন। চিনের বিদেশ মন্ত্রকের মুখপাত্র ঝা লিজিয়ং মঙ্গলবার সাংবাদিক বৈঠকে বিষয়টি নিয়ে উদ্বেগ প্রকাশ করেন। 

ঝা লিজিয়ং ভারতের এই পদক্ষেপ নিয়ে রীতিমত উদ্বেগ প্রকাশ করেন। তিনি বলেন, পুরো পরিস্থিতি খতিয়ে দেখা হবে। তিনি আরও বলেন, চিনের সরকার সর্বদা চিনের ব্যবসায়ীদের আন্তর্জাতিক ও স্থানীয় আইন মেনে কাজ করার নির্দেশ দিয়ে এসেছে। পাশাপাশি তিনি বলেছেন ভারত সরকারের দায়িত্বের মধ্যেই পড়ে চিন ও আন্তর্জাতিক বিনিয়োগকারীদের আইনি অধিকার রক্ষা করা। 


এক মাসের ও বেশি সময় ধরে পূর্ব লাদাখ সীমান্তে উত্তেজনা দেখা দিয়েছে। গত ১৬ জুন দুই দেশের সেনা দলের মধ্যে রক্তক্ষয়ী সংঘর্ষও হয়েছিল। সীমান্ত  সমস্যাকে কেন্দ্র করে ভারত ও চিনের মধ্য দূরত্ব ক্রমশই বাড়ছে। যার আঁচ পড়তে শুরু করেছে ব্যবসা বাণিজ্যেও। ইতিমধ্যেই ভারতে চিনা পণ্য বয়কটের ডাক উঠতে শুরু করেছে। এই পরিস্থিতি দাঁড়িয়ে নিরাপত্তার অভিযোগ তুলে টিকটক, শেয়ারইটের মত জনপ্রিয় অ্যাপগুলি ব্লক করতে শুরু করেছে ভারত। 

মঙ্গলবারই টিকটকের তরফ থেকে একটি বিবৃতি জারি করা হয়েছে। যেখানে বলা হয়েছে, ভারতে ব্যবহারকারীদের সম্পর্কে চিনা বা বিদেশের কোনও সংস্থার কাছে কোনও তথ্য দেয়নি সংস্থা। ভবিষ্যতেও সেই আশঙ্কা নেই বলে তাদের গ্রাহকদের আশ্বস্ত করা হয়েছে। টিকটকের ভারতের প্রধান নিখিল গান্ধী জানিয়েছেন, ভারতের সমস্ত আইন মেনেই কাজ করছিল সংস্থাটি। ব্যবহারকারীদের তথ্যের গোপনীয়তা ও সুরক্ষারও ওপরেও রীতিমত জোর দেওয়া হয়েছিল বলেও তিনি দাবি করেছেন। 

ইতিমধ্যেই শেয়ারইট, লাইকস মি বাইদুসহ একাধিক গুগল প্লে স্টোর অ্যাপেল অ্যাপ স্টোর থেকে সরানো শুরু হচ্ছে। কেন্দ্রীয় সরকারের এই পদক্ষেপপে দেশীয় শিল্পপতিদের পক্ষ থেকে স্বাগত জানান হয়েছে।