নভেল করোনাভাইরাস-এর দ্রুত সংক্রমণের ফলে বিশ্বের বহু দেশেই ব্যাপক আতঙ্ক ছড়িয়েছে। সর্বশেষ খবর অনুযায়ী, এই সংক্রমণে মৃতের সংখ্যা ৪,২৪৪-এ পৌঁছেছে। সেই সঙ্গে বিশ্বব্যপী আক্রান্ত হয়েছেন ১,১৯,০৮৬ জন। শুধু চিনেই মোট ৮০,৯৯৯ জন আক্রান্ত এবং মৃত্যু হয়েছে ২,০৪৬ জনের। অথচ এই ভয়াবহ পরিস্থিতিকেই চিনে কেউ কেউ অফিস কামাই-এর ভালো অজুহাত হিসাবে ব্যবহার করছেন করোনাভাইরাস আতঙ্ক-কে।

ওই চিনা ব্যক্তির নাম জানা যায়নি। জানা গিয়েছে তিনি অফিস-কে জানিয়েছিলেন তাঁর শরীরে কোভিড-১৯ এর লক্ষণ দেখা যাচ্ছে। একটি সুপারমার্কেটে শপিং করার সময় তিনি করোনাভাইরাস-এ আক্রান্ত হন বলে দাবি করেছিলেন তিনি। তিনি মনে করেছিলেন অফিস কামাই-এর জন্য এর থেকে ভালো অজুহাত আর হতে পারে না। কিন্তু তার কথা শুনেই তার অফিস তিন দিন ধরে সমস্ত কাজকর্ম বন্ধ করে অফিসের সমস্ত কর্মচারীকে বিচ্ছিন্ন অবস্থায় রেখে দেয়।

এরপরই সন্দেহ হয় কর্তৃপক্ষের। পুলিশ তার বিষয়ে খোঁজখবর করা শুরু করে। আর তদন্ত করতে যেতেই তার কাহিনিতে বেশ কিছু ফাঁক ধরা পড়ে। এমনকি সুপার মার্কেটে তার উপস্থিতি প্রমাণ করার জন্য ওই ব্যক্তি যেসব নথি জমা দিয়েছিলেন সেগুলিও ভুয়ো বলে ধরা পড়ে। এরপরই ভুল তথ্য ছড়িয়ে দেওয়ার অপরাধে তাঁকে গ্রেফতার করা হয়েছে। তিন মাসের জন্য তাকে জেলের সাজা দেওয়া হয়েছে।

করোনাভাইরাস প্রাদুর্ভাবে এখন চিন-সহ অনেক দেশেই শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান এবং অফিস কাছারি বন্ধ রাখার নির্দেশ দিয়েছে। গোটা বিশ্বেই এই রোগ নিয়ে আতঙ্ক রয়েছে। তারমধ্যেই ওই তচিনা ব্যক্তির মতোই কিছু লোক মিথ্যা সংবাদ ছড়িয়ে সেই আতঙ্ক আরও বহুগুণে বাড়িয়ে দিচ্ছেন। করোনাভাইরাসে আক্রান্ত বলে মিথ্যা দাবি করছেন। গত ফেব্রুয়ারিতে, কানাডা থেকে জামাইকাগামী একটি বিমানের জনৈক যাত্রী করোনভাইরাসে আক্রান্ত বলে মিথ্যা দাবি করেছিলেন 'মজা করার জন্য'। কিন্তু তার ওই মজায় বিমানটি টরন্টোতে ফিরে আসতে বাধ্য হয়েছিল। এর কিছু দিন পর, মস্কো পাতালরেলেও এক ব্যক্তির মজা করায় যাত্রীদের মধ্যে দৌড়াদৌড়ি পড়ে গিয়েছিল।