দিনে দিনে বেড়েই চলেছে মৃতের সংখ্যা। কোনওভাবেই পরিস্থিতি  নিয়ন্ত্রণে আনা সম্ভব হচ্ছে না। বৃহস্পতিবার সকাল পর্যন্ত চিনের মূল ভখণ্ডে মৃতের সংখ্যা সরকারি ভাবে ৫৬০। বুধবার কেবল হুবেই প্রদেশে করোনা আক্রান্ত হয়ে মৃত্যু হয়েছে ৭০ জনের। 

আরও পড়ুন: ৫ বছরে কেজরির সম্পত্তি বেড়েছে ১.৩ কোটি, যদিও গাড়ি নেই দিল্লির কোটিপতি মুখ্যমন্ত্রীর

দেশের স্বাস্থ্যমন্ত্রকের দেওয়া তথ্য অনুযায়ী বুধবার নতুন করে মারণ এই ভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছে ৩,৬৯৪ জন। আর দেশে মোট আক্রান্তের সংখ্যা সরকারি ভাবে ২৮,০১৮।

 

 

হুবেই-এর রাজধানী উহানে গত ডিসেম্বর সর্বপ্রথম করোনা সংক্রমণের খবর পাওয়া যায়। তারপর থেকে ঝড়ের গতিতে গোটা চিনে ছড়িয়ে পড়েছে এই মারণ ভাইরাস। ইতিমধ্যে বিশ্বের ২০টিরও বেশি দেশে করোনা সংক্রমণের খবর পাওয়া যাচ্ছে। যার মধ্যে রয়েছে ভারতও।

আরও পড়ুন: অবতরণের সময় রানওয়ে থেকে ছিটকে পড়ল যাত্রীবাহী বিমান, হয়ে গেল তিন টুকরো

ক্রমেই আক্রান্তের সংখ্যা বাড়তে থাকায় হাসপাতালগুলিতে স্থান সংকুলান সম্ভব হচ্ছে না। সেকরাণে চিনের সরকারি দফতরগুলিতে অস্থায়ীভাবে হাসপাতাল তৈরি করা হচ্ছে। এরমধ্যে করোনা চিকিৎসায় প্রয়োজনীয় উপকরণের অভাবও দেখা দিচ্ছে বলে উহানের এই সরকারি কর্মকতা জানাচ্ছেন। 

 

 

করোনা মোকাবিলায় ১০ দিনে হাসপাতাল তৈরি করেছিল চিনা প্রশাসন। এবার নির্মায়মাণ হাসপাতালগুলির কাজও দ্রুত শেষ করা হচ্ছে যাতে সেখানে দ্রুত চিকিৎসা পরিষেবা শুরু করা যায়। 

এদিকে করোনা ছড়িয়ে পড়ার আতঙ্কে চিন থেকে আসা বিদেশিদের রাশিয়ায় প্রবেশে সাময়িকভাবে নিষেধাজ্ঞা জারি করেছে পুতিন প্রশসান। এর আগে করোনাভাইরাস সংক্রমণ প্রতিরোধে চিনের সঙ্গে সীমান্ত বন্ধ করেছএ রাশিয়া। অনির্দিষ্টকালের জন্য চিনের নাগরিকদের ভিসা দেওয়াও বন্ধ করা হয়েছে। এদিকে চিনের পরে করোনায় সবচেয়ে আক্রান্ত রয়েছেন জাপানে।