কাশ্মীর ইস্যু নিয়ে ফের মুখ খুললেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প। বৃহস্পতিবার ট্রাম্প বলেন কাশ্মীর সমস্যার সমাধান নির্ভর করছে ভারত এবং পাকিস্তানের ওপর। তবে দক্ষিণ এশিয়ার দুই দেশ চাইলে কয়েক দশকের পুরনো এই সমস্যার মধ্যস্থতা করতে পারেন ডোনাল্ড ট্রাম্প। বৃহস্পতিবার এমনই মন্তব্য করেন তিনি। 

এই প্রসঙ্গে ট্রাম্প পাক প্রধানমন্ত্রী ইমরান খানের সঙ্গে গত সপ্তাহের বৈঠকের প্রসঙ্গও তো লেন, যেখানে তিনি পাক প্রধানমন্ত্রীকে জানিয়েছিলেন কাশ্মীর সমস্যা সমাধান করার জন্য তিনি সাহায্য করবেন। পাকিস্তানের তরফ থেকে এই বার্তা মেনে নেওয়া হলেও ভারতের তরফে এই আবেদন খারিজ করে দেওয়া হয়েছিল। 

কাশ্মীর ইস্যুতে মধ্যস্থতার প্রস্তাব ভারতের তরফে মেনে নেওয়া হচ্ছে না- এই প্রসঙ্গে সাংবাদিকরা তাঁকে প্রশ্ন করলে ট্রাম্প বলেন, বিষয়টি পুরোপুরিভাবেই নির্ভর করছে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর ওপর। তিনি আরও বলেন যে, তিনি মনে করেন নরেন্দ্র মোদী এবং ইমরান খান-দু'জনেই খুব ভাল মানুষ, তাঁরা একসঙ্গে ভালভাবেই কাজটা সামলাচ্ছেন। কিন্তু যদি তাঁরা হস্তক্ষেপ চান, সেই ব্যাপারেই পাকিস্তানকে জানিয়েছেন তিনি, খোলাখুলিভাবে ভারতকেও একই কথা বলেছেন বলে জানান তিনি।  

প্রসঙ্গত গত সপ্তাহেই পাক প্রধানমন্ত্রী ইমরান খানের মার্কিন সফরে ভারতকে কার্যত চমেক দিয়েছিলেন ডোনাল্ড ট্রাম্প। তিনি বলেন, প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী তাঁকে কাশ্মীর ইস্যুতে মধ্যস্থতা করার আবেদনন জানিয়েছেন। সেই নিয়ে উত্তাল হয়ে উঠেছিল আন্তর্জাতির রাজনীতি। কারণ কাশ্মীর সমস্যা ভারত এবং পাকিস্তানের মধ্য়েকার একটি দ্বিপাক্ষিক সমস্যা। ১৯৭২-এর সিমলা চুক্তিতে এমনটাই মেনে নিয়েছিল দুই দেশ। কিন্তু মার্কিন প্রেসিডেন্টের এই মন্তব্যে প্রশ্ন উঠেছিল আদৌ কি মোদী এমন আবেদন জানিয়েছেন। পরে অবশ্য পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের তরফ থেকে ট্রাম্পের সেই মন্তব্য খারিজ করে দেওয়া হয় এবং বলা হয় কাশ্মীর নিয়ে যদি কোনও আলেচনা হয়, তাহলে তা দ্বিপাক্ষিক আলোচনাই হবে।