করোনার মরশুমে শুধু এদেশেই নয়, কমবেশি দুনিয়াজুড়েই চলছে মাস্কের আকাল। বিশেষ করে, করোনাযুদ্ধে যাঁরা সামনের সারিতে নেমে কাজ করছেন, সেই ডাক্তার ও স্বাস্থ্য়কর্মীদের কাছে ভীষণ প্রয়োজনীয় মাস্ক কিন্তু আদৌ পর্যাপ্ত নয়। এই পরিস্থিতিতে এবার এগিয়ে এল ফেসবুক। স্বাস্থ্য়কর্মীদের  জন্য় এবার ৭ লাখ ২০ হাজার মাস্ক দান করছেন সংস্থার সিইও মার্ক জুকেরবার্গ।

সোমবার জুকেরবার্গ এক ফেসবুক পোস্টে জানান, "কিছুদিন আগে যখন অস্ট্রেলিয়ার জঙ্গলে আগুন লেগেছিল, তখন সংস্থার তরফ থেকে কেনা হয়েছিল মাস্ক। যা এখন আমাদের কাছে জরুরি ভিত্তিতে মজুত রয়েছে।  যেসব স্বাস্থ্য়কর্মীরা সামনের সারিয়ে দাঁড়িয়ে করোনার সঙ্গে লড়ে যাচ্ছেন, তাঁদেকে আমরা এই মাস্কগুলো দিয়ে দেব।" সেইসঙ্গে জুকেরবার্গ জানান, আরও অনেক মাস্ক যাতে জোগাড় করে স্বাস্থ্য়কর্মীদের হাতে তুলে দেওয়া যায়, সেই লক্ষ্য়ে কাজ করছে তাঁর সংস্থা।

জুকেরবার্গের এই উদ্য়োগকে স্বাগত জানিয়েছেন নেটিজেনরা। বিশ্বজুড়ে করোনার সংক্রমণ অতিমারীর রূপ নিয়েছে।  চিনের উহান প্রদেশ থেকে গত বছর ডিসেম্বর ছড়িয়ে পড়েছিল যে ভাইরাস, তা এই তিনমাসের মধ্য়ে তা সংক্রামিত হয়েছে বিশ্বের ৭০টিরও বেশি দেশে। এরই মধ্য়ে করোনার ভরকেন্দ্র চিন থেকে সরে আসে ইউরোপে। একে একে আক্রান্ত হয়ে পড়ে ইতালি, স্পেন, ফ্রান্স, জার্মানি, গ্রেট ব্রিটেন। ইতালিতে যা কার্যত মহামারীর রূপ নিয়ে নিয়েছে। এই পরিস্থিতিতে ভারতের মতো তৃতীয় বিশ্বের দেশেও তা ছড়িয়ে পড়তে শুরু করতে শুরু করেছে। এদেশে এখনও পর্যন্ত আক্রান্তের সংখ্য়া তিনশো ছাড়িয়েছে। আশঙ্কা করা হচ্ছে, এখন তা গোষ্ঠী-সংক্রমণের পর্যায়ে এগিয়ে চলেছে। গোটা দেশে কার্যত লকডাউন শুরু হয়ে গিয়েছে।

এই পরিস্থিতিতে করোনা প্রতিরোধে যাঁরা সামনের সারিতে দাঁড়িয়ে কাজ করছেন, সেই চিকিৎসক বা স্বাস্ব্য়কর্মীদের  ঝঁকিও কিছু কম নয়।  ইতিমধ্য়েই বেশ কয়েকজন চিকিৎসক মারা গিয়েছেন বিশ্বের নানা জায়গায়। আক্রান্ত হয়েছন অসংখ্য় নার্স। অভিযোগ, প্রয়োজনীয় মাস্কের অভাব তাঁদেরকে আরও ঝুঁকির মধ্য়ে ঠেলে দিচ্ছে। তাই এই পরিস্থিতিতে ফেসবুকের তরফে ৭ লাখেরও বেশি মাস্ক দান করার খবরে উৎসাহিত সবাই।