সাত মাস আগেই উরজ ইকবালের সঙ্গে বিয়ে হয়েছিল দিলওয়ার আলির। উরজ  পাকিস্তানের  একটি উর্দু সংবাদপত্রে কাজ করতেন তিনি। লাহোরে সংবাদপত্রের দফতরে ঢুকেই দিলওয়ার তাঁকে লক্ষ্য করে গুলি চালায় বলে জানিয়েছেন এক উচ্চপদস্থ পুলিশ আধিকারিক। উরজকে হাসপাতালে নিয়ে গেলে মৃত বলে ঘোষণা করা হয়। 

উরজের স্বামী দিলওয়ার আলিও একটি উর্দু সংবাদপত্রে কাজ করেন। ইতিমধ্যে তার বিরুদ্ধে অভিযোগ দায়ের করেছেন উরজের ভাই ইয়াসির ইকবাল। এফআইআরে ইকবাল লিখেছেন, প্রেম করেই বিয়ে করেছিলেন উরজ। মাত্র সাত মাস আগেই বিয়ে হয়েছিল দিলওয়ারের সঙ্গে। কিন্তু বিয়ের পর থেকেই নানা সাংসারিক কারণে দুজনের মধ্যে ঝামেলা শুরু হয়। উরজ যাতে চাকরি ছেড়ে দেয় তার জন্য নিয়মিত অশান্তি করত দিলওয়ার। 

চাকরি ছাড়ার বিষয়টি নিয়ে দিলওয়ার মারধরও করেছে বলে আরও অভিযোগ উরজের ভাই ইকবাল। এই নিয়ে পুলিশের কাছে অভিযোগও দায়ের করেন উরজ। যদিও পুলিশ কোনও ব্যবস্থা নেয়নি বলে ক্ষোভ ঝরে পড়েছে ইকবালের গলায়। 

ক্রাইম রিপোর্টারের কাজ করছেন উরজ। স্বামীর সঙ্গে সম্পর্কের অবনতি হলে সংবাদপত্রের দফতরের একটি ঘরে থাকতেন তিনি। ঘটনার তদন্তে নেমে সেদিনের সিসিটিভি খুটিয়ে দেখছে পুলিশ।