ইতালির পরেই স্পেন। এবার ইউরোপের এই দেশটিও ক্রমশ করোনা অতিমারীর দিকে এগিয়ে চলেছে।  শুধু রবিবার থেকে সোমবারের মধ্য়েই সেখানে ৩৯৪জনের মৃত্য়ুর খবর পাওয়া গিয়েছে। আক্রান্তের সংখ্য়া  হু-হু করে বাড়ছে। এদিকে এই পরিস্থিতিতে রোগী সামাল দিতে সেখানকার হাসপাতালগুলো রীতিমতো হিমশিম খাচ্ছে। হাসপাতালের করিডোরে পড়ে রয়েছেন রোগী। শুধু ওয়েটিং রুমেই অপেক্ষা করছেন কাতারে কাতারে মানুষ। মাদ্রিদের হাসপাতাল নাকি কলকাতার আরজিকর?

গোটা বিশ্বে করোনায় আক্রান্ত ৩ লক্ষ মানুষের মধ্য় যখন ১ লক্ষই সুস্থ হয়ে বাড়ি ফিরেছেন, চিন যখন আবার স্বাভাবিক হয়ে উঠছে, তখনই ক্রমাগত দুঃসংবাদ আসছে স্পেন থেকে। আশঙ্কা করা হচ্ছে, এবার ইতালির পথেই এগিয়ে চলছে স্পেন। এখনও পর্যন্ত সে দেশে আক্রান্তের সংখ্য়া প্রায় ২৯ হাজারে পৌঁছেছে। প্রতিদিনই কার্যত লাফিয়ে লাফিয়ে বাড়ছে আক্রান্তের সংখ্য়া। আর এখনও পর্যন্ত সেখানে করোনায় মৃতের সংখ্য়া দাঁড়িয়েছে ৭২০তে। এই পরিস্থিতিতে জরুরি ভিত্তিতে যাবতীয় ব্য়বস্থা নেওয়ার কথা ঘোষণা করেছেন সেখানকার প্রধানমন্ত্রী পেদ্রো সানচেজ। দেশবাসীকে সতর্ক করে দিয়ে তিনি মন্তব্য় করেছেন, "সবচেয়ে খারাপ সময় আসতে বাকি এখন।"

প্রসঙ্গত, করোনার সংক্রমণ ঠেকাতে স্পেনের সরকার দেশে ১৫ দিনের জরুরি অবস্থা জারি করেছে। প্রয়োজনে তার মেয়াদ আরও বাড়ানো হতে পারে বলে মনে করা হচ্ছে। এই পরিস্থিতিতে সেখানকার পরিস্থিতি সত্য়িই বড় শোচনীয়। সোমবার সোশাল মিডিয়ায় একটি ভিডিয়ো ভাইরাল হয়। যেখানে দেখা যায় মাদ্রিদের এক হাসপাতালে  বেড না-পেয়ে  সেখানকার করিডর, বারান্দায় গিজহিজ করছে রোগীর দল। হাসপাতালের ওয়েটিং রুমেই শুধু অপেক্ষা করছেন কাতারে কাতারে মানুষ। হাসপাতালের জরুরি বিভাগে যত রোগীর চিকিৎসা সম্ভব, তার তিনগুণ রোগী এসে ভরতি হচ্ছেন। যা দেখে প্রশ্ন উঠেছে, মাদ্রিদের হাসপাতাল নাকি কলকাতার আরজিকর?