গোটা পৃথিবীটাই যেন রক্তকরবীর অমল। আর স্নেহের পরশে তাঁদের ভাল করে তুলছেন সুধারা। জেট গতির পৃথিবীকে আজও যখন ছিন্নভিন্ন করে ফেলে রক্তপাত, মহামারি, তখন আজও সুধাদের পথ দেখান ফ্লোরেন্স নাইটিঙ্গেল। 

১৮২০ সালে ১২ মে। ফ্লোরেন্সর এক অভিজাত পরিবারে জন্ম নেয় একরত্তি মেয়ে। ইতালির ফ্লোরেন্স শহরে জন্মগ্রহণ করায় সঙ্গে বাবার নাইটিঙ্গেল নামটি জুড়ে তার নাম হয় ফ্লোরেন্স নাইটিঙ্গেল।

অল্প বয়েসে বাবার সান্নিধ্যের কারণেই নানা বিদ্যা অর্জন করতে পেরেছিলেন ফ্লোরেন্স। মনে রাখতে হবে, সেই সময়ে গোটা ইউরোপেই নারীশিক্ষার তেমন চল ছিল না। সংখ্যাতত্ত্বে তাঁর দখল ছিল।

ডার্বিশায়ার থেকে ১৭ বছর বয়সে লন্ডনে আসেন ফ্লোরেন্স। ওই সময় লন্ডনের হাসপাতালগুলোর অবস্থা ছিল খুবই করুণ। এর অন্যতম কারণ সে সময়ে কেউ  নার্স হতে চাইতেন না। সামাজিক ভাবেই এই পেশাকে খাঁটো করে দেখা হত। তবে নাইটিঙ্গেল জানতেন পৃথিবীতে তিনি এসেছেন সেবিকা হওয়ার জন্যই। বাবা মা বিরূপ হয়েছেন সময়ে সময়ে। আশা ছাড়েননি ফ্লোরেন্স। অবশেষে বাবা-মায়ের অনুমতি মিললে তিনি ১৮৫১ সালে নার্সের প্রশিক্ষণ নিতে জার্মানি পাড়ি দেন।

এই সময়েই তিনি নার্স প্রশিক্ষণের জন্য তহবিল সংগ্রহের কাজ শুরু করেন। প্রায় ভিক্ষে করে জোগাড় করেছিলেন ৪৫ হাজার পাউন্ড।  লন্ডনের সেন্ট থমাস হাসপাতালে নার্সিংকে সম্পূর্ণ পেশা হিসেবে প্রতিষ্ঠিত করার জন্য ১৮৬০ সালে তিনি প্রতিষ্ঠা করেন ‘নাইটিঙ্গেল ট্রেনিং স্কুল’ যার বর্তমান নাম ‘ফ্লোরেন্স নাইটিঙ্গেল স্কুল অব নার্সিং’। ডা. এলিজাবেথ ব্ল্যাকওয়েলের সঙ্গে যৌথভাবে ১৮৬৭ সালে নিউইয়র্কে চালু করেন ‘উইমেন্স মেডিক্যাল কলেজ’।

১৮৫৩ সালে শুরু হয় ক্রিমিয়ার যুদ্ধ। এ যুদ্ধে বহু সৈনিক আহত হয়। সে সময় যুদ্ধাহতদের সেবায় ফ্লোরেন্স আত্মনিবেদন করে ইতিহাসে অমর হয়ে আছেন।

আহত সৈন্যদের সেবার মাধ্যমে নার্সিংকে তিনি অনন্য উচ্চতায় নিয়ে গেছেন। হ্যারিকেন নিয়ে রাতের আঁধারে তিনি ছুটে গেছেন আহতদের দ্বারে দ্বারে। এরপর থেকেই বিশ্ব তাকে ‘দ্য লেডি উইথ দ্য ল্যাম্প’ ডাকতে শুরু করে। যুদ্ধের পর ফ্লোরেন্স বহু দাতব্য প্রতিষ্ঠান গড়ে তোলেন।

১৮৫৪ সালে ফ্লোরেন্স দলবল নিয়ে পৌঁছে যান সেমিলিয়ে ব্যারাকে। প্রাণঘাতী সংক্রমণ তেকে উদ্ধার করেন হাজার হাজার রোগীকে।

 ১৯১০ সালের ১৩ আগস্ট ৯০ বছর বয়সে লন্ডনে নিজের বাড়িতেই মারা যান ফ্লোরেন্স।  ১৯৭৪ সাল থেকে তাঁর জন্মদিন ১২ মে পালিত হয়ে আসছে ‘ইন্টারন্যাশনাল নার্সেস ডে’।