সত্যি এও কি সম্ভব! পড়াশুনো নিয়ে ছোট ছোট ছেলেরা সমস্যা করবে এ তো খুবই স্বাভাবিক ব্যাপার। তার জন্য সামান্য বকা-ঝকা করা মানায়। বা খুব বেশি হলে একটু কড়াভাবে তাকে বুঝিয়ে দেওয়া যেতে পারে যে পড়াশোনা না করলে তার কতখানি ক্ষতি হতে পারে। কিন্তু হোমওয়ার্ক করেনি বলে ছেলেকে যেভাবে শাস্তি দিলেন মা তাতে রীতিমতো গা শিউরে উঠবে আপনার।

ঘটনাটি চিনের জেইঝাং প্রদেশের। হোমওয়ার্ক না করে এক নাগাড়ে মোবাইল ফোন নিয়ে খেলছিল মাত্র নয় বছরের ছেলেটি। এর শাস্তি হিসাবে ওই খুদের গায়ে হাত তুলেছিল তার মা। এত পর্যন্ত সবকিছু ঠিকঠাকই চলছিল, কিন্তু তারপর হঠাৎই উত্তেজিত হয়ে একটি লোহীর রড দিয়ে বেধড়ক পেটাতে থাকে ছেলেকে।

জানা গিয়েছে দীর্ঘ ৫ ঘন্টা ধরে এইভাবে পেটাতে থাকেন ছেলেকে। এখানেই থামেননি তিনি। এরপর ছেলের পায়ে ফোটাতে থাকেন সূচ। একরত্তি শিশুটি যন্ত্রণায় ছটফট করলেও হুশ ফেরেনি মায়ের। এইভাবে মারধর করতে করতে ছেলেটি নিস্তেজ হয়ে পড়লেও তাকে একা ফেলেই নিজের ঘরে ঘুমোতে চলে যান তিনি। পরের দিন সকালে ছেলেকে অজ্ঞান অবস্থায় মাটিতে পড়ে থাকতে দেখে খানিকটা সন্দেহ হয় তার। কিন্তু ততক্ষণে অনেকটাই দেরি হয়ে গিয়েছে। ছেলেটিকে হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হলে চিকিৎসকরা তাকে মৃত বলে ঘোষণা করেন। 

এ যেন ম্যাজিক, রাতারাতি উধাও ৫৬ টনের একটি আস্ত সেতু

বালাকোট, পুলওয়ামা অতীত, শান্তি ফেরাতে পা বাড়ালেন ইমরান, কী ভাবছেন মোদী

ছেলের প্রতি মায়ের এমন অমানবিক আচরণের নমুনা দেখে রীতিমতো স্তম্ভিত আদালতের বিচারপতিও। সমস্ত দিক বিচার বিবেচনা করে তিনি ওই মহিলাকে ১০ বছরের কারাদণ্ডে দণ্ডিত করেন।