হাসপাতালের বিল শোধ করতে না পারার জেরে দেহ আটকে রাখার ঘটনা ভারতে খুব স্বাভাবিক।  এই ধরনের খবর মাঝে মাঝেই সংবাদপত্রের শিরোনামে চলে আসে। এই ধরনের অমানবিক ঘটনার সাক্ষী থাকল ইন্দোনেশিয়া।  হাসপাতালের বিল শোধ করতে করতে না পারার জেরে ছয় মাসের শিশু আলিফের দেহ আটকে রাখে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ।   হাসপাতালের বিলের পরিমাণ নেহাৎ কম নয়। ভারতীয় মুদ্রায় প্রায় দেড় লক্ষ টাকা। হাসপাতাল কর্তৃপক্ষের মানবিকতা না থাকলেও রয়েছে ইন্দোনেশিয়ায় ভাড়া খাটা মোটরসাইকেল চালকদের।  প্রায় ১০০ জনের মতো বাইক চালক দল বেঁঝে হাসপাতালের সামনে ভিড় করে মর্গ থেকে শিশুটির মৃতদেহ উদ্ধার করে। ইন্দোনেশিয়ার প্যাদাং শহরে এই ঘটনা ঘটেছে বলে জানা গিয়েছে। 

হাসপাতালে ছয় মাসের শিশুর মৃতদেহ আটকে রাখার খবর পেয়ে মোটকসাইকেলের চালকরা প্যাদাং শহরে চলে আসেন।  ছোট্ট শিশুটির মৃতদেহ উদ্ধার মোবাইলের ক্যামেরায় তোলা হয়। সেখানে একদল সবাইক চালত  বহরটি হাসপাতাল থেকে বেরিয়ে আসছে। এক চালকের হাতে রয়েছে ছোট্ট আলিফের দেহ । 

ইন্দোনেশিয়ার এম জাজিল হাসপাতাল থেকে জানানো হয়েছে, বকেয়া বিল শোধ  করতে না পারার জন্য শিশুটির দেহ ছাড়া হবে না বলে। এরপর মোটরবাইকে ভাড়া খাটে এমন শতাধিক চালক এসে হাসপাতালের সামনে ভিড় করে। হাসপাতাল থেকে শিশুটির দেহ নিয়ে চলে যান। তাঁদের মধ্যে একজল আলিফের কাকু বলে জানা গিয়েছে।  এক মোটর চালক জানিয়েছেন, প্রায় দেড় লক্ষ টাকা ওই পরিবার দিতে পারছে না। অসহারয় পরিবারটির পাশে দাঁড়াতে আমরা এই সিদ্ধান্ত নিয়েছি।