সন্ত্রাসবাদ সাম্প্রতিককালে বারবংবারই গর্জে উঠেছেন মোদী। শুক্রবার কিরঘিজস্তানের এসসিও সামিটে গিয়ে সন্ত্রাসবাদ ইস্যুটি নিয়ে মুখ খুললেন নরেন্দ্র মোদী। তাঁর কথায়, যেসব দেশ বা রাষ্ট্র সন্ত্রাসবাদকে মদত যোগায়, এবং সন্ত্রাসবাদীদের দিকে সাহায্যের হাত বাড়িয়ে দেয়, এমনকী মানুষের মনে ভীতি প্রদর্শনের জন্য অর্থনৈতিকভাবেও সাহায্য করে, তার বিরুদ্ধে অবিলম্বে একজোট হতে হবে। 

নাম না করেই যে তিনি পাকিস্তানের দিকে তীর ছুঁড়লেন তা খানিকটা হলেও স্পষ্ট। সম্প্রতি শ্রীলঙ্কায় ঘটে যাওয়া ইস্টার হামলার প্রসঙ্গও তুলে আনেন মোদী। তিনি বলেন সেখানেও সন্ত্রাসবাদের ছাপ স্পষ্ট। এটি এমনই এক অভিশাপ, যা যে কোনও সময়ে পৃথিবীর যেকোনও স্থানে ছড়িয়ে পড়তে পারে, এবং নিরীহ মানুষের প্রাণ নির্বিচারে শেষ করে দিতে পারে। তবে আর নয়, এখনি সময় হয়েছে এই সংকীর্ণ ভাবনা-চিন্তার ঊর্ধ্বে উঠে একজোট হয়ে সন্ত্রাসবাদের বিরুদ্ধে রুখে দাঁড়ানো।   

সবথেকে তাৎপর্যপূর্ণ বিষয় হল, মোদীর এই বক্তব্যকে সমর্থন করেছে বিস্কেক। বিস্কেকের ঘোষণায় বলা হয় যে, সাম্প্রতিককালে  সন্ত্রাসবাদ এবং সন্ত্রাসবাদীদের ক্রমবিকাশের দিকটি নিয়ে বিশেষভাবে ভাবনা-চিন্তার অবকাশ রয়েছে। বিস্কেকের বিবৃতিতে আরও বলা হয়েছে যে, সন্ত্রাসবাদ এবং সন্ত্রাসবাদী ধ্যান-ধারণার বিরুদ্ধে অবিলম্বে একজোট হওয়ার প্রয়োজনীয়তা আছে। এই প্রসঙ্গে নরেন্দ্র মোদীও আরও জানান যে সন্ত্রাসমুক্ত সমাজ গড়ো তোলাই ভারতের প্রধান লক্ষ্য। এর জন্য এসসিও-র সকল সদস্য রাষ্ট্রকে এক হওয়ার আহ্বান জানিয়েছেন মোদী।