২০২০ সালের মত ২০২১ সালেও কী গোটা বিশ্বকে করোনাভাইরাসের নতুন স্ট্রেনের বিরুদ্ধে লড়াইয় করে যেতে হবে? বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার প্রধান বিজ্ঞানী সৌম্যা স্বামীনাথনের সঙ্গে সেই জল্পনা আরও বাড়ল। একটি প্রেস ব্রিফিং-এর সৌম্যা স্বামীনাথন জানিয়েছেন, বর্তমানে ভাইরাসটির নতুন রূপের মাধ্যমে মানুষদের পুনরায় সংক্রমিত হওয়ার খবর তাঁরা পাচ্ছেন। দক্ষিণ আফ্রিকা থেকে প্রাথমিক প্রতিবেদনে দেখা যাচ্ছে, পূর্বে সংক্রমিত হয়েছিলেন এমন লোকেরা আবারও সংক্রমিত হতে পারেন। 

গত বছরের শেষের দিন থেকে করোনাভাইরাসের নতুন স্ট্রেনের দাপট বাড়ছিল। পরিস্থিতি এমন জায়গায়ে পৌঁছে ছিল যেখানে ইংল্যান্ডে সংক্রমণ রুখতে নতুন করে লকডাউন জারি করা হয়েছে। ইংল্যান্ড সব বেশ কয়েকটি দেশে দাপট বাড়ছিল করোনাভাইরাসের নতুন স্ট্রেনের। নতুন ব্রিটেনে করোনাভাইরাসের নতুন যে স্ট্রেনের সন্ধান পাওয়া গিয়েছিল সেটি আগের তুলনায় ৭০ শতাংশ বেশি সংক্রামক বলেও জানান হয়েছিল। ব্রিটেন জানিয়েছেন বর্তমান বিশ্বে  করোনাভাইরাসের শতাধিক রূপ দাপিয়েছে বেড়াচ্ছে। আগামী দিনে নতুন স্ট্রেনের বিরুদ্ধে কাজ করবে এমন প্রতিষেধক আনারও তোড়জোড় শুরু হয়েছে বলেও সেদেশের বিশেষজ্ঞরা জানিয়েছেন। 

নতুন স্ট্রেনের এই রূপগুলি নিয়ে বিশ্ব জুড়ে গবেষণা চলছে। একই সঙ্গে মহামারির আতঙ্কও আরও বাড়ছে। সংক্রমণ রুখতে বিশেষজ্ঞরা মাস্কেক ব্যবহার করতে আবেদন জানিয়েছেন।