করোনার জীবাণু নিষ্ক্রিয় করতে পারে কম ঘণত্বের ওজোন গ্যাস। দাবি করেছেন জাপানের বিজ্ঞানীরা। তাঁরা বলেছেন হাসপাতাল ও ওয়েটিং রুমগুলিকে জীবাণুমুক্ত করার এটি একটি অন্যতম উপায়। 

ফুজিটা হেলথ বিশ্ববিদ্যালয়ের বিজ্ঞানীরা  দাবি করেছেন যে এই বিষয়ে তাঁদের হাতে রীতিমত তথ্য প্রমাণ রয়েছে। বিজ্ঞানীরা জানিয়েছেন, ওজন গ্যাসের ঘণত্বের অংশ যদি  পার্টস পার মিলিয়ন  ০.০৫-০১ হয় তাহলে তা মানুষের পক্ষে ক্ষতিকারক নয়। একই সঙ্গে এই ঘণত্ব জীবাণু মুক্ত করতে সহায়ক। তাঁরা জানিয়েছেন পরীক্ষার জন্য একটি ঘরে তাঁরা ওজোন জেনারেটর ব্যবহার করেছিলেন। প্রায় ১০ ঘণ্টা পরে তাঁরা দেখেছেন করোনাভাইরাস প্রায় ৯০ শতাংশ হ্রাস পেয়েছে। 

জাপানের বিজ্ঞানীদের দাবি চিকিৎসার মাধ্যমে কম ঘণত্বের ওজোন গ্যাস ব্যবহার করলে করোনাভাইরাস থেকে মুক্তি পাওয়া যেতে পারেই বলে দাবি করেছেন তাঁরা। যেসব স্থানে একসঙ্গে অনেক মানুষ জড়ো হন সেখানেও স্বল্প ঘণত্বে ওজন গ্যাস ব্যবহার করা যেতে পারে বলেও পরামর্শ দিয়েছেন তাঁরা। মধ্য জাপানে আইচি প্রদেশে ফুজিটা মেডিক্যাল বিশ্ববিদ্যালয়ের হাসপাতালের ইতিমধ্যেই ওজোন জেনারেটর স্থাপন করা হয়েছে। একাধিক ওয়ার্ড ও ওয়েটিং রুমে বসানো হয়েছে ওই জেনারেটর। 

করোনা সংক্রমণ রুখতে এন ৯৫ মাস্কে ভরসা ভারতীয় বিজ্ঞানীদের, বললেন মাস্ক কতটা জরুরি

জলের তোড়ে ভেসে গেল কংক্রিটের তৈরি সেতু, ভূস্বর্গের ভয়ঙ্কর ভিডিওটি দেখুন ...

ওজোন একধরনের অক্সিজেন অনু। এই টি অনেকগুলি রোগজীবাণু নিস্ত্রিয় করতে সক্ষম। আগেই একটি পরীক্ষায় দেখা ১-৬পিপিএম উচ্চ ঘণত্বের ওজন গ্যাস ব্যবহার করা হয়েছিল। তাতে দেখা গিয়েছিল যে করোনার জীবাণু ধ্বংস হয়। কিন্তু ওজোন গ্যাসের ওই উচ্চতা মানুষের স্বাস্থ্যের পক্ষে ক্ষতিকারক। 

নিট ও জেইই স্থগিত রাখার পক্ষেই সওয়াল মমতার, সুপ্রিম কোর্টে যাওয়ার আবেদন মুখ্যমন্ত্রীদের কাছে ..

জর্জিয়া ইনস্টিটিউট অব টেকনোলজির সাম্প্রতিক এক গবেষণায় দেখা গেছে চিকিৎসকদের পোষাক, চশমা ও একাধিক চিকিৎসা সামগ্রী স্যানিটাইজ করতে ওজোন রীতিমত কার্যকর।